/* */
   Sunday,  Jun 24, 2018   8 PM
Untitled Document Untitled Document
শিরোনাম: •আওয়ামী লীগের ইতিহাস মানুষের অধিকার প্রতিষ্ঠার ইতিহাস : প্রধানমন্ত্রী •জাতীয় উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে নিষ্ঠার সঙ্গে কাজ করুন : রাষ্ট্রপতি •এমপি হোক আর এমপির ছেলে হোক কাউকে ছাড় নয়: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী,আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল • তিন সিটিতে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেলেন যারা •নাইজেরিয়ার জয়ে আর্জেন্টিনার স্বপ্ন বড় হলো •আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে নানা কর্মসূচি •টেলিটকের ফোরজির জন্য অপেক্ষা আরো চার মাস
Untitled Document

এপিজে আবদুল কালাম আর নেই

তারিখ: ২০১৫-০৭-২৮ ১২:২০:১১  |  ৩৮৫ বার পঠিত

0 people like this
Print Friendly and PDF
« আগের সংবাদ পরের সংবাদ»

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: ভারতের সাবেক প্রেসিডেন্ট এপিজে আবদুল কালাম আর নেই।

সোমবার সন্ধ্যায় হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে তার মৃত্যু হয় বলে জানায় ভারতীয় সংবাদ মাধ্যম।

মৃত্যুকালে বয়স হয়েছিলো ৮৪ বছর। সাবেক এই প্রেসিডেন্টের পরলোকগমনে ভারত সরকার সাত দিনের জাতীয় শোক ঘোষণা করেছে।

ভারতরত্ম পুরস্কার পাওয়া ‘ভারতের মিসাইল ম্যান’খ্যাত এই পরমাণু বিজ্ঞানীর পুরো নাম আবুল পাকির জয়নুল-আবেদিন আবদুল কালাম।

স্থানীয় সংবাদমাধ্যম জানায়, শিলংয়ে এক অনুষ্ঠানে ভাষণ দানকালে বুকের বাঁ দিকে ব্যথা অনুভব করেন আবদুল কালাম। স্থানীয় সময় সন্ধ্যা সাতটা নাগাদ তাকে নিয়ে যাওয়া হয় বেথানি হাসপাতালে। ওই হাসপাতালের চিকিৎসক জন শৈল এই সাবেক রাষ্ট্রপতির মৃত্যুর খবর নিশ্চিত করেন।

এপিজে আবদুল কালাম ২০০২ সাল থেকে ২০০৭ সাল পর্যন্ত ভারতের ১১তম প্রেসিডেন্ট হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৩১ সালের ১৫ অক্টোবর তামিলনাড়ুর রামেশ্বরামে এক দরিদ্র পরিবারে জন্ম নেন তিনি। তার পিতার নাম জয়নুল আবেদিন ও মাতার নাম আসিআম্মা।

১৯৫৪ সালে এপিজে আবদুল কালাম ইউনিভার্সিটি অব মাদ্রাজ থেকে পদার্থবিদ্যায় স্নাতক ডিগ্রি অর্জন করেন। মাদ্রাজ ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজি (এমআইটি) থেকে ১৯৬০ সালে এরোস্পেস ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে উচ্চতর শিক্ষা লাভ করেন।

কর্মজীবনে তিনি ভারতের প্রতিরক্ষা গবেষণা ও উন্নয়ন সংস্থায় (ডিআরডিও) বিজ্ঞানী ও ভারতীয় মহাকাশ গবেষণা সংস্থায় (আইএসআরও) বৈজ্ঞানিক প্রশাসক পদে দীর্ঘদিন কাজ করেন।

১৯৯৮ সালে ভারতের প্রথম সফল পারমাণবিক পরীক্ষা পোখরান-২ এ তিনি ছিলেন মুখ্য অবদানকারী।

কাজের স্বীকৃতি স্বরূপ ভারত সরকার এপিজে আবদুল কালামকে ১৯৮১ সালে পদ্ম ভূষণ, ১৯৯০ সালে পদ্ম বিভূষণ ও ১৯৯৭ সালে ভারত রত্ন উপাধি দেয়। এই তিন জাতীয় উপাধি ছাড়াও জাতীয় স্বার্থে ও মানব কল্যাণে গুরুত্বপূর্ণ অবদানের জন্য তিনি আরও অনেক দেশীয় ও আন্তর্জাতিক পদক-সম্মানে ভূষিত হন।

এদিকে, সাবেক এই প্রেসিডেন্টের পরলোকগমনে ভারত সরকার দেশে সাত দিনের জাতীয় শোক ঘোষণা করেছে বলে জানিয়েছে প্রেস ট্রাস্ট অব ইন্ডিয়া (পিটিআই)।


এ পাতার অন্যান্য সংবাদ

•২০২৪ সাল পর্যন্ত রাশিয়ার উন্নয়ন পরিকল্পনা ‘মে ডিক্রি’ স্বাক্ষর পুতিনের •ইসরায়েলি সৈন্যকে চড় মেরে ঝড় তুলেছে ফিলিস্তিনি এক কিশোরী •মেক্সিকোর জন্যে সবচেয়ে রক্তক্ষয়ী বছর ২০১৭ •ইসরাইল-ফিলিস্তিন সমঝোতা প্রক্রিয়া পুনরায় শুরু করতে জাতিসংঘে রাশিয়ার আহবান •রোহিঙ্গা সংকটের টেকসই সমাধানে নমপেনের সহযোগিতা কামনা ঢাকার •মিয়ানমার রোহিঙ্গাদের ফেরত নিতে সম্মত •বাংলাদেশে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গা নারী: “আঁর পোয়াইন্দার বাপ ইঞ্জিনিয়ার আছিল” •বাবা-মাকে ছাড়াই বাংলাদেশে তেরোশো রোহিঙ্গা শিশু
Untitled Document
  • সর্বশেষ সংবাদ
  • সবচেয়ে পঠিত
  • এক্সক্লুসিভ

Top
Untitled Document