/* */
   Monday,  Dec 10, 2018   12:37 AM
Untitled Document Untitled Document
শিরোনাম: •স্বাধীনতা সার্বভৌমত্ব রক্ষায় সজাগ থাকতে সেনা কর্মকর্তাদের প্রতি রাষ্ট্রপতির আহ্বান •মনোনয়ন বাতিলের বিরুদ্ধে খালেদা জিয়ার আপিল ইসিতে খারিজ •মনোনয়ন না পাওয়া দলের প্রার্থীদের মহাজোট প্রার্থীর পক্ষে প্রার্থিতা প্রত্যাহারের অনুরোধ শেখ হাসিনার •নির্বাচনী প্রচারণায় ট্রাম্পকে ‘রাজনৈতিক’ সহযোগিতার প্রস্তাব দেয় রাশিয়া •টেকনোক্রেট কোন মন্ত্রী কেবিনেটে থাকছেন না : ওবায়দুল কাদের •বেগম রোকেয়া দিবস কাল •আগামীকাল থেকে ওয়েস্ট ইন্ডিজ . বাংলাদেশ। ওয়ানডে সিরিজ
Untitled Document

ত্রয়ীর প্রত্যাবর্তনে বিভক্ত পাকিস্তান

তারিখ: ২০১৫-০৮-২২ ১৫:০৫:২৬  |  ২৬৬ বার পঠিত

0 people like this
Print Friendly and PDF
« আগের সংবাদ পরের সংবাদ»

ক্রীড়া ডেস্ক: আগের দিনই আইসিসি জানিয়ে দিয়েছে, আগামী ২ সেপ্টেম্বর থেকে সব ধরনের ক্রিকেট খেলতে পারবেন স্পট ফিক্সিংয়ের দায়ে অভিযুক্ত পাকিস্তানের তিন ক্রিকেটার সালমান বাট, মোহাম্মদ আসিফ ও মোহাম্মদ আমের। যদিও এ তিনজনের আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ফেরা নিয়ে খোদ পাকিস্তানেই তৈরি হয়েছে মতপার্থক্য। অনেকেই আইসিসির সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়েছেন, অনেকেই এর বিরোধিতা করেছেন।

২০১০ সালে আগস্টের শেষ সপ্তাহে অনুষ্ঠিত লর্ডস টেস্টে স্পট ফিক্সিং করার অপরাধে এ তিনজনকে ভিন্ন ভিন্ন মেয়াদে শাস্তি দেয় আইসিসির ট্রাইব্যুনাল। এতে সব ধরনের ক্রিকেটে বাট পাঁচ বছরের বহিষ্কারাদেশসহ দশ বছরের নিষেধাজ্ঞা, আসিফ দুই বছরের বহিষ্কারাদেশসহ সাত বছরের নিষেধাজ্ঞা এবং আমের পাঁচ বছরের বহিষ্কারাদেশ পান। ২০১১ সালের ৫ ফেব্রুয়ারি এমন রায় দেন তিন সদস্যের এক বেঞ্চ। তবে, ২০১০ সালের ১ সেপ্টেম্বর থেকেই এ শাস্তি শুরু হয়ে যায়। সে হিসেবে তিনজনেরই কমপক্ষে পাঁচ বছরের শাস্তির সীমা আগামী ১ সেপ্টেম্বরে শেষ হয়ে যাচ্ছে।
তিনজনের এ প্রত্যাবর্তনের সম্ভাবনা নিয়ে এরই মধ্যে দ্বিধাবিভক্ত হয়ে পড়েছেন পাকিস্তানের সাবেক ক্রিকেটাররা। মহসিন খান, রমিজ রাজা, রশিদ লতিফ বাজিদ খানের মতো ক্রিকেটাররা তাদের পাকিস্তান দলে ফেরার বিপক্ষে অবস্থান নিয়েছেন। তবে, বাট ও আমেরের পক্ষে 'ব্যাট' করেছেন কিংবদন্তি পাকিস্তানি ব্যাটসম্যান মোহাম্মদ ইউসুফ।
সাবেক অধিনায়ক রশিদ লতিফ পিটিআইকে দেওয়া তার মতামতে বলেছেন, 'যেসব ক্রিকেটার পরিচ্ছন্ন ক্রিকেট খেলে, তাদের প্রতি এটা বিশাল অবিচার হবে। আমি এ পরিস্থিতিটাকে এমনভাবে দেখি যে, পাকিস্তানের পক্ষে সেই মানুষদের খেলানোটা ভুল হবে, যারা দুর্নীতি ও প্রতারণা করেছে।'
পাকিস্তানের সাবেক ওপেনার, প্রধান নির্বাচক ও কোচ মহসিন খান বলেছেন, 'খেলার সময় ম্যাচ বিক্রি করা বা ফিক্সিং করা বিশাল অপরাধ। একবার এমনটা করলে আপনি দ্বিতীয়বার সুযোগ পেতে পারেন না।' তবে, এই পূর্বসূরিদের সঙ্গে একমত নন মোহাম্মদ ইউসুফ। 'অন্য খেলোয়াড়রা দুর্নীতির দায়ে অভিযুক্ত ও নিষেধাজ্ঞা ভোগ করার পর ফিরে আসতে পারলে, এ তিনজন পারবে না কেন?' ২২ বছর বয়সী আমেরের ব্যাপারে পিসিবি অবশ্য এরই মধ্যে ইতিবাচক। তাকে ঘরোয়া ক্রিকেটে খেলার সুযোগও করে দিয়েছে। হয়তো বাট-আসিফও সে সুযোগ পাবেন।


এ পাতার অন্যান্য সংবাদ

•নারী বিশ্বকাপের প্রাইজ মানি বাড়ানোর ঘোষণা দিল ফিফা •টাইব্রেকারে স্পেনকে হারিয়ে কোয়ার্টারফাইনালে স্বাগতিক রাশিয়া •ফ্রান্সের সঙ্গে ড্র করে শেষ ষোলোতে ডেনমার্ক •নাইজেরিয়ার জয়ে আর্জেন্টিনার স্বপ্ন বড় হলো •সৌদি আরবকে হারিয়ে রাশিয়াকে নিয়ে শেষ ষোলোতে উরুগুয়ে •রাশিয়া বিশ্বকাপ ফুটবল ২০১৮: ইতিহাসের বিচারে কে চ্যাম্পিয়ন হতে পারে •হঠাৎ রিয়াল ছাড়লেন জিদান •ফুটবল খেলা আমাদের কাছে স্বাধীনতা': কলকাতায় মুসলিম মহিলাদের ফুটবল ম্যাচ
Untitled Document
  • সর্বশেষ সংবাদ
  • সবচেয়ে পঠিত
  • এক্সক্লুসিভ

Top
Untitled Document