/* */
   Monday,  Sep 24, 2018   11:41 AM
Untitled Document Untitled Document
শিরোনাম: •পবিত্র আশুরা উপলক্ষে নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে : আছাদুজ্জামান মিয়া •বান্দরবানে কৃষি ব্যাংকের উদ্যোগে সিংগেল ডিজিট সুদে ঋণ বিতরণ •সৌদি আরবে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের প্রথম বিদেশ সফর •জাতিসংঘ অধিবেশনে যোগদিতে শুক্রবার প্রধানমন্ত্রীর লন্ডনের উদ্দেশে ঢাকা ত্যাগ •রোহিঙ্গা বসতিতে কক্সবাজারের জীববৈচিত্র্য হুমকির মুখে : ইউএনডিপি •মর্যাদার লড়াইয়ে আজ মুখোমুখি ভারত ও পাকিস্তান •সংসদে জাতীয় দক্ষতা উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ বিল, ২০১৮ পাস
Untitled Document

ত্রয়ীর প্রত্যাবর্তনে বিভক্ত পাকিস্তান

তারিখ: ২০১৫-০৮-২২ ১৫:০৫:২৬  |  ২৬২ বার পঠিত

0 people like this
Print Friendly and PDF
« আগের সংবাদ পরের সংবাদ»

ক্রীড়া ডেস্ক: আগের দিনই আইসিসি জানিয়ে দিয়েছে, আগামী ২ সেপ্টেম্বর থেকে সব ধরনের ক্রিকেট খেলতে পারবেন স্পট ফিক্সিংয়ের দায়ে অভিযুক্ত পাকিস্তানের তিন ক্রিকেটার সালমান বাট, মোহাম্মদ আসিফ ও মোহাম্মদ আমের। যদিও এ তিনজনের আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ফেরা নিয়ে খোদ পাকিস্তানেই তৈরি হয়েছে মতপার্থক্য। অনেকেই আইসিসির সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়েছেন, অনেকেই এর বিরোধিতা করেছেন।

২০১০ সালে আগস্টের শেষ সপ্তাহে অনুষ্ঠিত লর্ডস টেস্টে স্পট ফিক্সিং করার অপরাধে এ তিনজনকে ভিন্ন ভিন্ন মেয়াদে শাস্তি দেয় আইসিসির ট্রাইব্যুনাল। এতে সব ধরনের ক্রিকেটে বাট পাঁচ বছরের বহিষ্কারাদেশসহ দশ বছরের নিষেধাজ্ঞা, আসিফ দুই বছরের বহিষ্কারাদেশসহ সাত বছরের নিষেধাজ্ঞা এবং আমের পাঁচ বছরের বহিষ্কারাদেশ পান। ২০১১ সালের ৫ ফেব্রুয়ারি এমন রায় দেন তিন সদস্যের এক বেঞ্চ। তবে, ২০১০ সালের ১ সেপ্টেম্বর থেকেই এ শাস্তি শুরু হয়ে যায়। সে হিসেবে তিনজনেরই কমপক্ষে পাঁচ বছরের শাস্তির সীমা আগামী ১ সেপ্টেম্বরে শেষ হয়ে যাচ্ছে।
তিনজনের এ প্রত্যাবর্তনের সম্ভাবনা নিয়ে এরই মধ্যে দ্বিধাবিভক্ত হয়ে পড়েছেন পাকিস্তানের সাবেক ক্রিকেটাররা। মহসিন খান, রমিজ রাজা, রশিদ লতিফ বাজিদ খানের মতো ক্রিকেটাররা তাদের পাকিস্তান দলে ফেরার বিপক্ষে অবস্থান নিয়েছেন। তবে, বাট ও আমেরের পক্ষে 'ব্যাট' করেছেন কিংবদন্তি পাকিস্তানি ব্যাটসম্যান মোহাম্মদ ইউসুফ।
সাবেক অধিনায়ক রশিদ লতিফ পিটিআইকে দেওয়া তার মতামতে বলেছেন, 'যেসব ক্রিকেটার পরিচ্ছন্ন ক্রিকেট খেলে, তাদের প্রতি এটা বিশাল অবিচার হবে। আমি এ পরিস্থিতিটাকে এমনভাবে দেখি যে, পাকিস্তানের পক্ষে সেই মানুষদের খেলানোটা ভুল হবে, যারা দুর্নীতি ও প্রতারণা করেছে।'
পাকিস্তানের সাবেক ওপেনার, প্রধান নির্বাচক ও কোচ মহসিন খান বলেছেন, 'খেলার সময় ম্যাচ বিক্রি করা বা ফিক্সিং করা বিশাল অপরাধ। একবার এমনটা করলে আপনি দ্বিতীয়বার সুযোগ পেতে পারেন না।' তবে, এই পূর্বসূরিদের সঙ্গে একমত নন মোহাম্মদ ইউসুফ। 'অন্য খেলোয়াড়রা দুর্নীতির দায়ে অভিযুক্ত ও নিষেধাজ্ঞা ভোগ করার পর ফিরে আসতে পারলে, এ তিনজন পারবে না কেন?' ২২ বছর বয়সী আমেরের ব্যাপারে পিসিবি অবশ্য এরই মধ্যে ইতিবাচক। তাকে ঘরোয়া ক্রিকেটে খেলার সুযোগও করে দিয়েছে। হয়তো বাট-আসিফও সে সুযোগ পাবেন।


এ পাতার অন্যান্য সংবাদ

•টাইব্রেকারে স্পেনকে হারিয়ে কোয়ার্টারফাইনালে স্বাগতিক রাশিয়া •ফ্রান্সের সঙ্গে ড্র করে শেষ ষোলোতে ডেনমার্ক •নাইজেরিয়ার জয়ে আর্জেন্টিনার স্বপ্ন বড় হলো •সৌদি আরবকে হারিয়ে রাশিয়াকে নিয়ে শেষ ষোলোতে উরুগুয়ে •রাশিয়া বিশ্বকাপ ফুটবল ২০১৮: ইতিহাসের বিচারে কে চ্যাম্পিয়ন হতে পারে •হঠাৎ রিয়াল ছাড়লেন জিদান •ফুটবল খেলা আমাদের কাছে স্বাধীনতা': কলকাতায় মুসলিম মহিলাদের ফুটবল ম্যাচ •মাতাল অবস্থায় গাড়ি চালিয়ে গ্রেপ্তার টাইগার উডস
Untitled Document
  • সর্বশেষ সংবাদ
  • সবচেয়ে পঠিত
  • এক্সক্লুসিভ

Top
Untitled Document