/* */
   Tuesday,  Jun 19, 2018   05:06 AM
Untitled Document Untitled Document
শিরোনাম: •বাংলাদেশের ঢাকায় কিভাবে কাটে তরুণীদের অবসর সময়? •রাশিয়া বিশ্বকাপ ফুটবল ২০১৮: ইতিহাসের বিচারে কে চ্যাম্পিয়ন হতে পারে •বাংলাদেশের উপকূলের কাছে রাসায়নিক বহনকারী জাহাজে আগুন •ঈদের যুদ্ধবিরতিতে অস্ত্র ছাড়াই কাবুলে ঢুকলো তালেবান যোদ্ধারা •বিশ্বব্যাংক প্রাথমিক শিক্ষা উন্নয়নে ৭শ’ মিলিয়ন ডলার দেবে •ঢাকা মহানগরীতে ৪০৯টি ঈদ জামাত অনুষ্ঠিত •জাতীয় ঈদগাহে রাষ্ট্রপতির ঈদের নামাজ আদায়
Untitled Document

রহস্যঘেরা পাথরের পাত্র

তারিখ: ২০১৫-০৯-০৯ ১৪:৪৩:৫৯  |  ১৮০ বার পঠিত

0 people like this
Print Friendly and PDF
« আগের সংবাদ পরের সংবাদ»

নিউজ ডেস্ক: ভিয়েতনামের লাওসের এক প্রত্যন্ত অঞ্চল। খুবই অল্প ভ্রমণকারী এখানে আসেন। দেখতে পান অদ্ভুত সব পাথরের বয়াম বা পাত্র। কিন্তু কেন এই পাত্রগুলো এখানে রাখা হয়েছিল, কারা করেছিল? লাওসের ৪০০ কিলোমিটার উত্তর-পূর্বে মধ্য আকৃতির শহর ফোনসাভান। পাথরের পাত্রে ভরা এই ভূমি লাওসের সবচেয়ে চিত্তাকর্ষক মেগালিথিক আকর্ষণ।

কিন্তু এই অঞ্চলটি সম্পূর্ণ পর্যটনবর্জিত। এক পর্যটক বলছেন, আমি এর চারদিকের সৌন্দর্য দেখেও দেখছিলাম না, ভাসছিলাম না ন্যাম সঙ নদীতে। মগ্ন ছিলাম ২৫০০ বছর ধরে রহস্যের জ্বালে ঘেরা এক অজানা জগৎকে উন্মোচনে।
বেশিরভাগ পর্যটকের কাছে অজানা, সাধারণ যোগাযোগ রুট থেকে দূরে ফোনসাভানকে ঘিরে আছে পর্বত। এই পর্বতে আছে হাজার হাজার পাথরের চুলা। শত শত বর্গকিলোমিটারব্যাপী ছড়িয়ে থাকা এগুলোর সময়কাল লৌহযুগ। বিশৃঙ্খলভাবে ছড়িয়ে-ছিটিয়ে থাকা এগুলোর আকার-আকৃতি বেশ বড়। প্রায় তিন মিটার লম্বা এবং এক মিটার চওড়া এবং কয়েক টন ওজনের। ওই অঞ্চলে মানুষের হাড়, পাথরের লিড এবং চাকতিও পাওয়া গেছে।
কী উদ্দেশ্যকে তারা পূর্ণ করেছে এবং কারা নির্মাণ করে সৃষ্টি করে গেছে দীর্ঘমেয়াদি রহস্য। তাদের আকার এবং কাছাকাছি মানুষের হাড় থাকায় কিছু প্রত্নতত্ত্ববিদ মনে করেন, চুলাগুলো আসলে প্রাচীন সভ্যতার সমাধি অঞ্চল। বর্তমানে মেকং রিভার এবং গালফ অব টনকিনের মধ্যকার বাণিজ্যিক বিস্তৃত পথটিই প্রাচীন সভ্যতার সমাধিস্থল। অন্যরা বিশ্বাস করেন, পাথরের চুলাগুলো প্রাচীন মানবদের প্রথম দিকের অন্ত্যেষ্টিক্রিয়ার চিহ্ন।
কেউ কেউ বলেন, পাথরের সুস্বাদু ভাতের মদ তৈরিতে এই ভেসেল বা পাত্রগুলো তৈরি হয়েছিল। তাদের বিজয় উদযাপনে কাজে লাগত। অনেকে বলেন, এসব পাত্রে হুইস্কি রাখা হতো তৃষ্ণার্ত পৌরাণিক দানবের জন্য। যে ফোনসাভান পর্বতে বাস করত। কিন্তু সত্যটি হচ্ছে, এখনও কেউ জানে না এই গোপন প্রাচীন রহস্য। বিবিসি।


এ পাতার অন্যান্য সংবাদ

•আমতলীর আরপাঙ্গাশিয়া ইউনিয়নের উম্মুক্ত বাজেট ঘোষণা •আমতলীতে ৫ বিশিষ্ট ব্যক্তির স্মরণ সভা। •পরমাণু বিজ্ঞানী এম এ ওয়াজেদ মিয়ার ৯ম মৃত্যুবার্ষিকী কাল • (জ্যাক) এর বিজ্ঞপ্তি , সাংবাদিক গাজী রহমত উল্লাহ. বহিস্কার •শোক সংবাদ গোলাম মোস্তফা • ঝিনাইদহে খালার সঙ্গে অভিমানে স্কুল শিক্ষার্থীর বিষপানে আত্মহত্যা •শৈলকুপায় আবারো বাবা-মাকে মারধর ও খেতে না দেওয়ায় উপজেলা নির্বাহী কার্যালয়ে অভিযোগ দায়ের •আমতলীতে সহকারী কমিশনার নাজমুল আলমের দুটি বিদায়ী সংবর্ধনা অনুষ্ঠিত
Untitled Document
  • সর্বশেষ সংবাদ
  • সবচেয়ে পঠিত
  • এক্সক্লুসিভ

Top
Untitled Document