/* */
   Thursday,  Jun 21, 2018   11 PM
Untitled Document Untitled Document
শিরোনাম: •সিসিলিতে ৫২২ অভিবাসী নিয়ে ইতালির উপকূলরক্ষী জাহাজের অবতরণ •সরকারের উন্নয়নমূলক কর্মকান্ড সম্পর্কে তুলে ধরতে গণমাধ্যমের প্রতি তথ্য সচিবের আহ্বান •বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চলে ১ কোটি মানুষের কর্মসংস্থান হবে : প্রধানমন্ত্রী •মানবসম্পদ উন্নয়নে জাপান ৩৪ কোটি টাকার অনুদান দেবে •সৌদি আরবকে হারিয়ে রাশিয়াকে নিয়ে শেষ ষোলোতে উরুগুয়ে •গণভবনে মহিলা ক্রিকেটারদের প্রধানমন্ত্রীর সংবর্ধনা •প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে নির্বাচনকালীন সরকার অক্টোবরে গঠিত হতে পারে : ওবায়দুল কাদের
Untitled Document

"রামপালে বিদ্যুৎকেন্দ্র সুন্দরবনের জন্য বড় হুমকি"

তারিখ: ২০১৫-০৯-১৭ ১৬:৪০:৪৮  |  ২২৭ বার পঠিত

0 people like this
Print Friendly and PDF
« আগের সংবাদ পরের সংবাদ»

নিউজ ডেস্ক: বাংলাদেশের সুন্দরবন সংলগ্ন রামপালে কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণ করা হলে সুন্দরবনসহ ওই এলাকার প্রাকৃতিক বৈচিত্র্য  হুমকির মুখে পড়বে বলে জানিয়েছে একটি বেসরকারি সংস্থা।

সাউথ এশিয়ানস ফর হিউম্যান রাইটস নামের ওই সংস্থাটি বলছে, এ ধরণের একটি প্রকল্প সুন্দরবনের পরিবেশের জন্য বড় হুমকি। কয়লাভিত্তিক কেন্দ্রটিতে কয়লা পরিবহন, আবর্জনা পরিষ্কারের মতো বিষয়গুলো এখনো স্পষ্ট নয়।

তবে পরিবেশবাদীদের এ ধরণের অভিযোগ সরকারের তরফ থেকে বরাবরই নাকচ করা হয়েছে।

বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণের পরিবেশগত প্রভাব নিয়ে তথ্যানুসন্ধানের পর আজ সাউথ এশিয়ানস ফর হিউম্যান রাইটস নামে একটি বেসরকারি সংগঠন যে প্রতিবেদন তৈরি করেছে সেখানেই এসব বিষয় উঠে এসেছে।

আজ প্রতিবেদনটি প্রকাশ করা হবে।

বাংলাদেশ ও ভারতের যৌথ উদ্যোগে রামপালের ওই কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্রটি সুন্দরবনের সীমানার ১৪ কিলোমিটারের ভেতরে নির্মাণের প্রক্রিয়া চলছে।

বাংলাদেশে সাউথ এশিয়ান ফর হিউম্যান রাইটসের সদস্য সুলতানা কামাল বলছেন, যে দূরত্বের মধ্যে বিদ্যুৎ কেন্দ্রটি তৈরি করা হচ্ছে, সেটি আসলে নিষিদ্ধ দূরত্বের মধ্যেই। সুন্দরবনের কাছাকাছি এরকম একটি প্রকল্প বনটির জন্য বড় হুমকি।

তিনি আরো বলেন, কয়লা কোথা থেকে আসবে, কিভাবে পরিবহন করা হবে, কয়লার যেসব আবর্জনা নদীতে জমবে, সেগুলো কিভাবে পরিষ্কার হবে, এসব প্রশ্নের উত্তর এখনো স্পষ্ট নয়। এসব কারণে সুন্দরবনের উপর বিরূপ প্রভাব পড়বে বলেই আশংকা হচ্ছে। সেখানকার মানুষের স্বাস্থ্যের বিষয়টি নিয়েও পরিবেশবিদদের মধ্যে প্রশ্ন রয়েছে।

এর মধ্যেই সেখানকার জলজ প্রাণীর উপর এর প্রভাব পড়তে শুরু করেছে বলে সুলতানা কামাল জানান। কারণ সেখানের শুশুক বা ডলফিনগুলো সেই এলাকা ছেড়ে চলে যাচ্ছে।

বিভিন্ন মহলের এত আপত্তির পরও কেন সরকার বিষয়টি আমলে নিচ্ছে না, তা নিয়েও তিনি প্রশ্ন তোলেন। এ বিষয়ে পর্যালোচনা করে রামপালের পরিবর্তে অন্যত্র কেন্দ্রটি সরিয়ে নেয়ারও পরামর্শ দিয়েছে এই সংস্থাটি।

সূত্র:বিবিসি


এ পাতার অন্যান্য সংবাদ

•মানবসম্পদ উন্নয়নে জাপান ৩৪ কোটি টাকার অনুদান দেবে •বিপন্ন রোহিঙ্গারা স্থানীয় জনগণের সহযোগিতা পাচ্ছে : প্রধানমন্ত্রী •নিরাপত্তা বেষ্টনী কর্মসূচিতে বিশ্ব ব্যাংকের অতিরিক্ত ২৪৫ মিলিয়ন মার্কিন ডলার প্রদানের চুক্তি স্বাক্ষর মঙ্গলবার •রাষ্ট্রের তিন বিভাগের মধ্যে ঐক্যের আহ্বান রাষ্ট্রপতির •দেশের ইতিহাসে রংপুর সিটি নির্বাচন অন্যতম সেরা : ইডব্লিউজি •ফারমার্স ব্যাংক থেকে মহীউদ্দীন আলমগীরের পদত্যাগ বেসিক ব্যাংকের দুই সাবেক পরিচালককে জিজ্ঞাসাবাদ •বাংলাদেশে ৮ লাখ ১৭ হাজার রোহিঙ্গা আশ্রয় নিয়েছে : আইওএম •রোহিঙ্গা ক্যাম্পে দশ হাজার লেট্রিন নির্মাণ করে দিবে ইউনিসেফ
Untitled Document
  • সর্বশেষ সংবাদ
  • সবচেয়ে পঠিত
  • এক্সক্লুসিভ

Top
Untitled Document