/* */
   Monday,  Sep 24, 2018   9 PM
Untitled Document Untitled Document
শিরোনাম: •পবিত্র আশুরা উপলক্ষে নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে : আছাদুজ্জামান মিয়া •বান্দরবানে কৃষি ব্যাংকের উদ্যোগে সিংগেল ডিজিট সুদে ঋণ বিতরণ •সৌদি আরবে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের প্রথম বিদেশ সফর •জাতিসংঘ অধিবেশনে যোগদিতে শুক্রবার প্রধানমন্ত্রীর লন্ডনের উদ্দেশে ঢাকা ত্যাগ •রোহিঙ্গা বসতিতে কক্সবাজারের জীববৈচিত্র্য হুমকির মুখে : ইউএনডিপি •মর্যাদার লড়াইয়ে আজ মুখোমুখি ভারত ও পাকিস্তান •সংসদে জাতীয় দক্ষতা উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ বিল, ২০১৮ পাস
Untitled Document

সমুদ্রতীরে কচ্ছপের মেলা

তারিখ: ২০১৫-০৯-১৯ ১২:৩৭:১২  |  ৩০৭ বার পঠিত

0 people like this
Print Friendly and PDF
« আগের সংবাদ পরের সংবাদ»

নিউজ ডেস্ক: পর্যটকদের হৈচৈ, চিৎকার সামুদ্রিক কচ্ছপের ডিমপাড়াকে বিপর্যয়ের পথে নিয়ে গেছে। কোস্টারিকার সমুদ্রসৈকত অসসোনাল ওয়াইল্ডলাইফ রিফিউজিতে এ ঘটনা ঘটেছে। অসসোনাল ওয়াইল্ডলাইফ রিফিউজি হলো পৃথিবীতে সামুদ্রিক সবুজাভ কচ্ছপের ডিমপাড়ার ক্ষেত্রে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ দুটি জায়গার একটি। শত শত সামুদ্রিক কচ্ছপ সৈকতে আসে মাসে একবার। ওয়ার্ল্ড ওয়াইল্ডলাইফ ফান্ডের মত অনুসারে, তিন দিন বা পাঁচ দিন ধরে এরা এখানে ডিম পাড়ে। ১৯৮২ সাল থেকে অসসোনাল ওয়াইল্ডলাইফ রিফিউজি

একটি সংরক্ষিত অঞ্চল। যেখানে কচ্ছপের ডিম উৎপাদন এবং বিক্রি সরকারিভাবে বৈধ। যদিও কোস্টারিকার এই অসসোনাল ওয়াইল্ডলাইফ রিফুজিতে বর্তমানে অতিমাত্রায় পর্যটকের ভিড় তাদের ডিম পাড়ার সময়কে ভীষণভাবে বাধাগ্রস্ত করছে।
শত শত সংখ্যায় কচ্ছপ জমা হওয়ার সময়ই পর্যটকরা কচ্ছপদের পথে দাঁড়ায়, তীরের কাছে সাঁতার কাটে এবং নিজেদের শিশুসন্তানদের কচ্ছপের ওপর ঠেলে দেয় স্মৃতিচিহ্ন হিসেবে ছবি তুলতে। এতে অনেক কচ্ছপ সৈকতে ডিম না পেড়েই সাগরে ফিরে যায়।
কোস্টারিকার পরিবেশ ও এনার্জি মন্ত্রণালয়ের শ্রমিক ঐক্যের মতানুসারে, পর্যটকরা কচ্ছপদের স্পর্শ করে, দাঁড়িয়ে থাকে তাদের ডিম পাড়ার গর্তের সামনে এবং ফ্লাশ দিয়ে যেভাবে ইচ্ছে সেভাবে ছবি তোলে। তাই তারা পর্যটকদের এ ব্যাপারে নিরুৎসাহিত করছেন। তারা জোর দিয়ে বলেছে, পর্যটকদের এমনভাবে নিয়ন্ত্রণ করতে হবে যাতে তাদের ডিম পাড়ার সময়টুকুতে যেন ব্যাঘাত না ঘটে।
দ্য টিকো টাইমসের এক প্রতিবেদন অনুসারে, অসসোনাল ওয়াইল্ডলাইফ রিফুজি প্রশাসক ক্যারল হারনেনডেজ এক বক্তব্যে বলেছেন, তিনি কখনোই এত লোককে সমুদ্রসৈকতে দেখেননি। কোথাও কোথাও অনুমোদনহীন স্থানগুলোতেও পর্যটকরা প্রবেশ করেছে। যদিও বিশাল সংখ্যায় কচ্ছপ প্রায় প্রত্যেক মাসে ডিম পাড়ে, তবে সেপ্টেম্বর ও অক্টোবর মাস হলো চূড়ান্ত মুহূর্ত। এই সময় ভ্রমণ পরিচালনাকারীরা বা সংস্থাগুলো বাড়তি হিসেবে কচ্ছপ দর্শনের ব্যাপারটিকে পুঁজি করে।
তিন পুলিশ কর্মকর্তার সহযোগিতায় দুজন গার্ড দিয়ে ৪ মাইল লম্বা রিফুজি সৈকতের ভিড় নিয়ন্ত্রণ করা প্রায় অসম্ভব। কোস্টারিকা সরকার তাই বলেছে, সামুদ্রিক কচ্ছপের সংখ্যা বৃদ্ধি করা এবং তাদের পাড়া ডিম বিক্রি থেকে ফান্ড তৈরি করতে হবে এবং তা ব্যবহার হবে সৈকতে অবস্থানরত গার্ডদের পারিশ্রমিক এবং কচ্ছপ গবেষণায় সহযোগিতার জন্য। ডেইলি মেইল অবলম্বনে।


এ পাতার অন্যান্য সংবাদ

•কালকিনিতে ডিকে আইডিয়াল কলেজের হোস্টেল সিট বরাদ্দের অনিয়মের অভিযোগ ছাত্রদের অনশন। •আমতলীর আরপাঙ্গাশিয়া ইউনিয়নের উম্মুক্ত বাজেট ঘোষণা •আমতলীতে ৫ বিশিষ্ট ব্যক্তির স্মরণ সভা। •পরমাণু বিজ্ঞানী এম এ ওয়াজেদ মিয়ার ৯ম মৃত্যুবার্ষিকী কাল • (জ্যাক) এর বিজ্ঞপ্তি , সাংবাদিক গাজী রহমত উল্লাহ. বহিস্কার •শোক সংবাদ গোলাম মোস্তফা • ঝিনাইদহে খালার সঙ্গে অভিমানে স্কুল শিক্ষার্থীর বিষপানে আত্মহত্যা •শৈলকুপায় আবারো বাবা-মাকে মারধর ও খেতে না দেওয়ায় উপজেলা নির্বাহী কার্যালয়ে অভিযোগ দায়ের
Untitled Document
  • সর্বশেষ সংবাদ
  • সবচেয়ে পঠিত
  • এক্সক্লুসিভ

Top
Untitled Document