/* */
   Monday,  Sep 24, 2018   07:20 AM
Untitled Document Untitled Document
শিরোনাম: •পবিত্র আশুরা উপলক্ষে নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে : আছাদুজ্জামান মিয়া •বান্দরবানে কৃষি ব্যাংকের উদ্যোগে সিংগেল ডিজিট সুদে ঋণ বিতরণ •সৌদি আরবে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের প্রথম বিদেশ সফর •জাতিসংঘ অধিবেশনে যোগদিতে শুক্রবার প্রধানমন্ত্রীর লন্ডনের উদ্দেশে ঢাকা ত্যাগ •রোহিঙ্গা বসতিতে কক্সবাজারের জীববৈচিত্র্য হুমকির মুখে : ইউএনডিপি •মর্যাদার লড়াইয়ে আজ মুখোমুখি ভারত ও পাকিস্তান •সংসদে জাতীয় দক্ষতা উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ বিল, ২০১৮ পাস
Untitled Document

একই ফ্যানে দুই শিক্ষার্থীর লাশ

তারিখ: ২০১৫-০৯-১৯ ১৬:২১:৫৩  |  ২৭৩ বার পঠিত

0 people like this
Print Friendly and PDF
« আগের সংবাদ পরের সংবাদ»

নিজস্ব প্রতিবেদক: রাজধানীর বসুন্ধরা আবাসিক এলাকায় একটি বাসায় একই ফ্যানের সঙ্গে ঝুলন্ত অবস্থায় তরুণ-তরুণীর লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। নিহত সাজিদ হাসান হৃদয় ও নুসরাত জাহান মীরা দু'জনেই বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান নর্থসাউথ. বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী। পুলিশ জানায়, হৃদয় ও মীরা ঘনিষ্ঠ বন্ধু ছিলেন। হয়তো কোনো কারণে তারা আত্মহত্যা করে থাকতে পারেন।
পুলিশ জানায়, বসুন্ধরা আবাসিক এলাকার ডি ব্লকের ৬ নম্বর রোডের ২০৪ নম্বর বাড়ির দোতলার মেস বাসায় থাকতেন নর্থসাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের বিবিএ ছাত্র হৃদয়। গতকাল রাত সাড়ে ১০টার দিকে খবর পেয়ে পুলিশ ওই মেস বাসায় হৃদয়ের কক্ষের দরজা ভেঙে প্রবেশ করে হৃদয় ও তার বান্ধবী মীরাকে সিলিং ফ্যানের সঙ্গে ঝুলন্ত অবস্থায় মৃতদেহ উদ্ধার করে। মীরা একই বিশ্ববিদ্যালয়ের ফার্মাসি বিভাগের ছাত্রী ছিলেন। বাড়িটির কয়েকটি তলায় মেস করে বসুন্ধরা এলাকায় অবস্থিত বিভিন্ন বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা থাকতেন।
নিহত হৃদয়ের বন্ধুরা পুলিশকে জানিয়েছেন, মীরার সঙ্গে হৃদয়ের গভীর প্রেমের সম্পর্ক ছিল। মাঝে মধ্যেই মীরা হৃদয়ের বাসায় যেতেন। সর্বশেষ গতকাল দুপুরে মীরা হৃদয়ের বাসায় যান। ইসরাত হোসেন নামে এক তরুণী এক বছর ধরে ওই ফ্ল্যাটে বসবাস করছেন। তিনি পুলিশকে জানিয়েছেন, দুপুরে বাসা থেকে বের হওয়ার সময় তিনি দেখতে পান মীরা তাদের মেসের বাইরে হৃদয়ের জন্য অপেক্ষা করছেন। প্রায়ই মীরাকে দোতলার মেসে যাতায়াত করতে দেখেছেন।
ইসরাত হোসেন আরও জানান, দুপুরে বের হওয়ার পর রাতে তিনি বাসায় ফেরেন। ওই সময় সেখানে ভিড় দেখে তিনি এগিয়ে যান। পরে খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ গিয়ে লাশ উদ্ধার করে।
ভাটারা থানার ওসি নুরুল মুত্তাকিন জানান, বাসাটির ফ্লোরে তোষক বিছানো রয়েছে। কক্ষের সিলিং ফ্যানের সঙ্গে হৃদয় একটি ওড়না দিয়ে ও মীরা সবুজ রঙের গামছা পেঁচিয়ে গলায় ফাঁস লাগিয়ে ঝুলে ছিল। ফ্লোর থেকে তাদের পা এক হাত উপরে দেখা গেছে।
ওসি বলেন, তারা আত্মহত্যা করেছেন বলে ধারণা করা হচ্ছে। তবে আত্মহত্যার কারণ জানা যায়নি। বাসা থেকে কোনো সুইসাইড নোটও তাৎক্ষণিক পাওয়া যায়নি। মৃত্যুর প্রকৃত কারণ জানতে দু'জনের মরদেহ রাত সোয়া ১২টার দিকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।


এ পাতার অন্যান্য সংবাদ

•যোগ্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোর এমপিও ভুক্তির কাজ চলছে : নাহিদ •রাজৈরে স্কুল নির্বাচন সম্পন্ন •আমতলী উপজেলায় প্রাথমিকের ৮০টি প্রধান শিক্ষকের পদ খালি, শিক্ষার বেহাল দশা •ছাত্র বৃত্তি সঠিকভাবে বিতরণের নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর •বাক ও শ্রবণ প্রতিবন্ধীদের জন্য ইশারা ভাষা ইনস্টিটিউট প্রতিষ্ঠা করা হবে : মেনন •ঝিনাইদহে এবার স্কুল ছাত্রীকে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ডেকে এনে হত্যাচেষ্টা •আমতলীতে স্কুল ছাত্রীকে যৌন হয়রানি প্রতিবাদ করায় মেয়েসহ মামাকে মারধর •ঝিনাইদহ জেলা শিক্ষক সমিতির প্রতিবাদ সভা
Untitled Document
  • সর্বশেষ সংবাদ
  • সবচেয়ে পঠিত
  • এক্সক্লুসিভ

Top
Untitled Document