/* */
   Tuesday,  Jun 19, 2018   06:30 AM
Untitled Document Untitled Document
শিরোনাম: •বাংলাদেশের ঢাকায় কিভাবে কাটে তরুণীদের অবসর সময়? •রাশিয়া বিশ্বকাপ ফুটবল ২০১৮: ইতিহাসের বিচারে কে চ্যাম্পিয়ন হতে পারে •বাংলাদেশের উপকূলের কাছে রাসায়নিক বহনকারী জাহাজে আগুন •ঈদের যুদ্ধবিরতিতে অস্ত্র ছাড়াই কাবুলে ঢুকলো তালেবান যোদ্ধারা •বিশ্বব্যাংক প্রাথমিক শিক্ষা উন্নয়নে ৭শ’ মিলিয়ন ডলার দেবে •ঢাকা মহানগরীতে ৪০৯টি ঈদ জামাত অনুষ্ঠিত •জাতীয় ঈদগাহে রাষ্ট্রপতির ঈদের নামাজ আদায়
Untitled Document

ইইউ ৬৯ কোটি ইউরো অনুদান দিচ্ছে

তারিখ: ২০১৫-১১-১১ ১৯:৫৮:৪৩  |  ৩০৬ বার পঠিত

0 people like this
Print Friendly and PDF
« আগের সংবাদ পরের সংবাদ»

বাংলার বর্ণমালা ডেস্ক  দেশের সার্বিক উন্নয়নে ৬৯ কোটি ইউরো অনুদান দেবে ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ)। ইইউ’র সঙ্গে যৌথ কমিশনের বৈঠকে এ বিষয়ে নীতিগত সিদ্ধান্ত হয়েছে। 

বুধবার (১১ নভেম্বর) সকাল সাড়ে ১০টায় রাজধানীর শেরেবাংলা নগরে এনইসি সম্মেলন কক্ষে বাণিজ্য এবং অর্থনৈতিক বিষয়ে  বৈঠকে সিদ্ধান্ত হয়। বৈঠক শেষ হয় বিকেল পাঁচটায়।।

বৈঠকে বাংলাদেশ দলের নেতৃত্ব দেন অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের (ইআরডি) সিনিয়র সচিব মোহাম্মদ মেজবাউদ্দিন ও ইইউ’র নেতৃত্ব দেন এশিয়া প্যাসিফিক অঞ্চলের ভারপ্রাপ্ত ব্যবস্থাপনা পরিচালক ইউগো আসটোটো।

অর্থ মন্ত্রণালয়, পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়, বাণিজ্য, আইন, ইআরডিসহ বিভিন্ন মন্ত্রণালয় ও বিভাগের অর্ধশতাধিক কর্মকর্তা বৈঠকে অংশ নেন। 

দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়ন, অবকাঠামোগত উন্নয়ন, সুশাসন, মাবাধিকার, নতুন বাণিজ্য কৌশল, বাংলাদেশের শ্রম আইন, ট্রেড ইউনিয়ন, পোশাক কারখানায় কর্মপরিবেশ, সেবা খাতে সরাসরি বিদেশি বিনিয়োগসহ (এফডিআই) বিভিন্ন বিষয়ে গুরুত্ব দিয়ে বৈঠকে আলোচনা হয়।
 
বাংলাদেশের অনেক পণ্যের রফতানির অন্যতম বাজার ইইউভূক্ত দেশগুলো। এসব দেশে পোশাক, চিংড়ি, হিমায়িত খাদ্য ও চামড়া পণ্য রফতানি বাড়ানোর বিষয়ে সাহায্য করবে ইইউ। সে লক্ষ্যে চলতি সময় থেকে আগামী পাঁচ বছরে ৬৯ কোটি ইউরো অনুদান দেবে ইইউ। তবে প্রতি বছর ১২ থেকে ১৩ কোটি ইউরো অনুদান আসতে পারে ইইউ’র পক্ষ থেকে।
 
বৈঠক শেষে ইআরডি’র অতিরিক্ত সচিব আবুল মনসুর মোহাম্মদ ফয়জুল্লাহ বলেন, ইইউ আগামী পাঁচ বছরে ৬৯ কোটি ইউরো অনুদান দেবে। তবে আশা করা যাচ্ছে, প্রতি বছর ১২ থেকে ১৩ কোটি ইউরো অনুদান পাওয়া যাবে।
 
ইউরোপীয় ইউনিয়নের অর্থায়নে দেশে মোট ২৩টি উন্নয়ন প্রকল্পের কাজ চলমান আছে। এসব প্রকল্পের অগ্রগতির বিষয়েও জানতে চেয়েছে ইইউ।
 
ইইউ’র ভারপ্রাপ্ত এমডি ইইগো অসটোটো সাংবাদিকদের বলেন, ইইউ’র অর্থায়নে চলমান প্রকল্পের বাস্তবায়ন অগ্রগতির বিষয়ে জানতে চেয়েছি। সিরিয়া ও লিবিয়া ইস্যুতে ইউরোপে শরনার্থীদের চাপ বাড়ছে- এ বিষয়টি নিয়েও আলোচনা হয়েছে।
 
অসটোটে বলেন, বাংলাদেশের চাহিদাগুলোর বিষয়ে জানতে চাওয়া হয়েছে। এসব চাহিদা বিবেচনা নিয়ে সহায়তা দেওয়া হবে। বাংলাদেশ ও ইইউ পক্ষের মধ্যে নানা বিষয়ে সহযোগিতা করা হবে।

 


এ পাতার অন্যান্য সংবাদ

•বিশ্বব্যাংক প্রাথমিক শিক্ষা উন্নয়নে ৭শ’ মিলিয়ন ডলার দেবে •ব্যাংকগুলোতে শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনা এবং মান উন্নয়নের ওপর জোর দিয়েছেন ব্যবসায়ি নেতারা •২০২৪ সালের আগেই উন্নয়নশীল দেশে পরিণত হবে বাংলাদেশ : এলজিআরডি মন্ত্রী •রিজার্ভ চুরির ঘটনায় আরসিবিসির বিরুদ্ধে মামলা করবে বাংলাদেশ ব্যাংক •একনেকে ১৩ প্রকল্পের অনুমোদন •ন্যূনতম ১৬ হাজার টাকা বেতন চান বাংলাদেশের তৈরি পোশাক শ্রমিকরা •ভারত থেকে গরুর মাংস আমদানির প্রস্তাব নাকচ •কম্বোডিয়ার সঙ্গে ১০টি সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত
Untitled Document
  • সর্বশেষ সংবাদ
  • সবচেয়ে পঠিত
  • এক্সক্লুসিভ

Top
Untitled Document