/* */
   Monday,  Sep 24, 2018   00:19 AM
Untitled Document Untitled Document
শিরোনাম: •পবিত্র আশুরা উপলক্ষে নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে : আছাদুজ্জামান মিয়া •বান্দরবানে কৃষি ব্যাংকের উদ্যোগে সিংগেল ডিজিট সুদে ঋণ বিতরণ •সৌদি আরবে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের প্রথম বিদেশ সফর •জাতিসংঘ অধিবেশনে যোগদিতে শুক্রবার প্রধানমন্ত্রীর লন্ডনের উদ্দেশে ঢাকা ত্যাগ •রোহিঙ্গা বসতিতে কক্সবাজারের জীববৈচিত্র্য হুমকির মুখে : ইউএনডিপি •মর্যাদার লড়াইয়ে আজ মুখোমুখি ভারত ও পাকিস্তান •সংসদে জাতীয় দক্ষতা উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ বিল, ২০১৮ পাস
Untitled Document

৯ কৌশল বিয়ের খরচ কমানোর

তারিখ: ২০১৫-১২-০৯ ১৩:১৮:০৭  |  ২২৯ বার পঠিত

0 people like this
Print Friendly and PDF
« আগের সংবাদ পরের সংবাদ»

লাইফস্টাইল ডেস্ক শীতকাল এলেই চারিদিকে বিয়ের ধুম পড়ে যায়। শীতকালে বিয়ে হলে মনের খুশি মত সাজা যায় এবং যা খুশি খাওয়া যায়। ফলে অসুস্থ হওয়ার ভয় থাকে না। তাই শীতকালকেই বিয়ের উপযুক্ত মাস মনে করেন অনেকেই। কিন্তু যে মাসেই বিয়ে হোক না কেন জীবনে একবারই বিয়ে করার সাধ থাকে মানুষের। আর ধুমধাম করে বিয়ে করা মানেই তো অনেক টাকার দরকার। কিন্তু ধুমধাম করে না করলেও আবার আত্মীয়স্বজনের মুখ হয়ে যাবে একেবারে ভার। এদিকে আবার মেয়ের বাবার ক্ষেত্রে পাত্র পক্ষের সমস্ত দাবি দাওয়া মেনে তারপরেও মেয়ের বিয়ে দিতে হয় যথেষ্ট ধুমধাম করে। কিন্তু ভাবুন তো একবার ছেলে বা মেয়ের বিয়েতে টাকা খরচ হল অনেক কম কিন্তু বিয়ে হল রীতিমত ধুমধাম করে! একবার ভেবে দেখুন তো এমনটা হলে কেমন হবে?

১. কাজের তালিকা তৈরি করুন :
বিয়ের সব কাজ করার আগে একটি তালিকা তৈরি করে রাখুন। অবশ্যই বাড়ির সকলের উপস্থিতিতেই তৈরি করবেন তালিকাটি। এতে আপনি ভুলে গেলেও অন্য কেউ মনে করিয়ে দেবে আপনাকে। এরপর আপনার সামর্থ্য অনুযায়ী সব খাতে খরচ করুন। দেখবেন তাতে খরচ অনেক কম হবে। তারপর যদি সেখান থেকে কিছু খরচ কমে যায় তাহলে তো একেবারে সোনায় সোহাগা।

২. বিয়ের গয়না :
বিয়ের গয়না একটা বড় খরচ। কিন্তু বিয়ে যখন ঠিক হবে তখন গয়না না কিনে জন্মেছেন যখন, তখন তো বিয়ে করতেই হবে সে কথা মনে করে আগে থেকেই গয়না একটু একটু করে কিনে রাখুন। তাহলে দেখবেন খুব বেশি গায়ে লাগবে না।  

৩. অতিথি নিমন্ত্রণে যাচাই-বাছাই :
আমাদের এমন অনেক আত্মীয় বা বন্ধু আছেন যারা সারা বছর আমাদের সুখে দুঃখে না থেকেও অনুষ্ঠানে নিমন্ত্রণ পাওয়ার জন্য বসে থাকেন। ভেবে দেখুন তারা যদি আমাদের দরকারের সময় নাই থাকেন তাহলে আমাদের ভালো সময় তাদের উপস্থিতির কি খুব দরকার আছে? যদি না থাকে তাহলে তাদেরকে নিমন্ত্রণ করা ছেড়ে দিন। তাই নিমন্ত্রণের ক্ষেত্রে কিছু যাচাই-বাছাই করলে বরং লাভ হবে আপনারই।
 
৪. কার্ড দিয়ে পুরনো নিমন্ত্রণ পদ্ধতির পরিবর্তন :
বিয়ে মানেই হল ট্রাডিশনাল অনুষ্ঠান। কিন্তু সেই অনুষ্ঠানের মানেই যে সব সময় পুরনো ঐতিহ্যকে আঁকড়ে ধরে আমাদের বেঁচে থাকতে হবে তার কথা কোথাও বলা নেই। এখন ইমেল সকলেই ব্যবহার করেন। তাই কার্ডের জন্য খরচ না করে সুন্দর করে ই-কার্ড বানিয়ে পাঠিয়ে দিতে পারেন আত্মীয় এবং বন্ধুদের কাছে। তাহলে কার্ডের খরচের সঙ্গে বেঁচে যাবে নিমন্ত্রণের যাতায়াত খরচও। প্রথমে হয়ত কেউ এই ধরনের নিমন্ত্রণকে বাজে বলবেন, কিন্তু পরে দেখবেন হয়ত তিনিও এই পদ্ধতিই অবলম্বন করছেন।  

৫. স্থান ঠিক করা :
বিয়ে কোথায় হবে সেই স্থানটিকে বেছে নেওয়াটাও একটা বড় ব্যাপার। যদি আপনার বাড়ি অনেক বড় থাকে তাহলে অন্য কোথাও বিয়ে বাড়ি ভাড়া না করে নিজের বাড়িকেই সুন্দরভাবে সাজিয়ে অনুষ্ঠান সেরে নিতে পারেন। যদি আপনার বাড়ি নাও থাকে তাহলে এমন  কোনও ভাড়া বাড়ি করুন যেখানে খরচ অনেক কম কিন্তু সেটা যেন আপনার বাড়ি থেকে খুব দূরে না হয়। দূরে হলে গাড়ি খরচ বেড়ে যেতে পারে। সেটাও একটা বাজে খরচ হয়ে যাবে।

৬. ডিজাইনার ড্রেস না কিনে বানিয়ে নিন :
সকলেরই ডিজাইনার ড্রেসের প্রতি একটা লোভ থেকে থাকে। কিন্তু ভাবুন তো এই ড্রেসের পিছনে কত টাকা খরচ হয়ে যেতে পারে। কিন্তু জানেন কি আপনি নিজেও বানিয়ে নিতে পারেন ডিজাইনার ড্রেস? সমস্ত জায়গাতে এমন অনেক দোকান থেকে থাকে যেখান থেকে আপনি ড্রেসে লাগানোর বহু মেটরিয়াল কিনে নিতে পারেন। সেটা আপনি যদি নিজে নিজের মত করে লাগিয়ে নিতে পারেন তাহলেই দেখবেন আপনার ড্রেসও হয়ে উঠবে ডিজাইনার ড্রেস। নেট থেকে কোনও ভালো ড্রেসের কনসেপ্ট নিয়ে অনায়াসেই বানিয়ে নিতে পারেন।

৭. সেলের সময় জামা কাপড় কিনে রাখুন :
বিয়ের আগেই যে সমস্ত জামাকাপড় কিনতে হবে তা কখনোই ঠিক নয়। তাই বিয়ের আগে যদি সেল চলে তাহলে সেই সময় কিছু কিছু জামা কাপড় কিনে রাখতে পারেন। তাহলে দেখবেন জিনিস ভালোও হবে আর আপনার খরচও কমে যাবে।

৮. সবাইকে বিয়ের কাজে সাহায্য করতে দিন :
আত্মীয়দের সকলকেই বিয়ের কাজে নিযুক্ত করুন। তাদের উপযুক্ত আপ্যায়নের অর্থ কিন্তু তাদের বিয়ের যে কোনও কাজ থেকে দূরে সরিয়ে রাখা নয়। তাই তাদের কাজের ভাড় দিতে দিন দেখবেন এতে অনেকটা খরচ কমে যাবে এবং কাজও হয়ে যাবে খুব তাড়াতাড়ি।

০৯. অন্যের ওপর চাপ সৃষ্টি করবেন না :
খরচ কমাতে হবে বলে অন্যের ওপর কখনোই চাপ সৃষ্টি করবেন না। এতে কাজ বিগড়ে যেতে পারে। তাই খুব ঠান্ডা মাথায় সকলের সঙ্গে কথা বলে তারপরেই সিদ্ধান্ত নিন। যিনি বিয়ে করছেন তার মত নেওয়াটাও সব থেকে জরুরি। সকলের মধ্যে কাজ ভাগ করে দিতে পারেন।


এ পাতার অন্যান্য সংবাদ

•বাংলাদেশের ঢাকায় কিভাবে কাটে তরুণীদের অবসর সময়? •বেশি ঘাম হলে মেনে চলুন কিছু টিপস •'রুয়েটের দুই মেধাবী বন্ধু প্রাণীজগতকে ক্যামেরায় বন্দির অদ্ভুত কাণ্ডকীর্তি রহস্য' •ওজন বাড়ানোর সহজ উপায় •কর্মীদের যৌন হেনস্থার ঘটনা চেপে রাখতে চায় অনেক প্রতিষ্ঠান? • ধূমপান ও মদ্যপানের নেশা ত্বকের ক্ষতি করতে পারে নানাভাবে • গরমে সবজি ও ফলমূল দিয়ে তৈরি করে নিন শরবত। • ৬টি মেয়েলি অভ্যাস পুরুষের , যা ধরিয়ে দিলেই রেগে যায়
Untitled Document
  • সর্বশেষ সংবাদ
  • সবচেয়ে পঠিত
  • এক্সক্লুসিভ

Top
Untitled Document