/* */
   Wednesday,  Sep 26, 2018   12:28 AM
Untitled Document Untitled Document
শিরোনাম: •পবিত্র আশুরা উপলক্ষে নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে : আছাদুজ্জামান মিয়া •বান্দরবানে কৃষি ব্যাংকের উদ্যোগে সিংগেল ডিজিট সুদে ঋণ বিতরণ •সৌদি আরবে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের প্রথম বিদেশ সফর •জাতিসংঘ অধিবেশনে যোগদিতে শুক্রবার প্রধানমন্ত্রীর লন্ডনের উদ্দেশে ঢাকা ত্যাগ •রোহিঙ্গা বসতিতে কক্সবাজারের জীববৈচিত্র্য হুমকির মুখে : ইউএনডিপি •মর্যাদার লড়াইয়ে আজ মুখোমুখি ভারত ও পাকিস্তান •সংসদে জাতীয় দক্ষতা উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ বিল, ২০১৮ পাস
Untitled Document

সাড়ে বারো হাজার যুদ্ধাপরাধীর বিচারের দাবি জানালেন তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু

তারিখ: ২০১৫-১২-১৫ ১০:৪৭:৩৮  |  ২৩৩ বার পঠিত

0 people like this
Print Friendly and PDF
« আগের সংবাদ পরের সংবাদ»

  নিউজ ডেস্ক;  তথ্যমন্ত্রী এবং জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দলের (জাসদ)সভাপতি হাসানুল হক ইনু বলেছেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের হত্যাকান্ডের পর যে সাড়ে বারো হাজার যুদ্ধাপরাধীকে ছেড়ে দেয়া হয়েছিল তাদের বিচারের আওতায় আনতে হবে।
তিনি আজ সকালে রাজধানীর মিরপুরের শহীদ বুদ্ধিজীবী স্মৃতিসৌধে শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবসে শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধাঞ্জলি অর্পণ শেষে সাংবাদিকদের সাথে আলাপকালে এ কথা বলেন।এ সময় জাসদের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।
তথ্যমন্ত্রী বলেন, মুক্তিযুদ্ধকালে গণহত্যা সংগঠিত করার দায়ে ১৯৭২ সালে যুদ্ধাপরাধের বিচার শুরু হয়েছিল। সে সময় সাড়ে বারো হাজার যুদ্ধাপরাধীর বিচার শুরু হয়। অথচ জিয়াউর রহমান রাষ্ট্রীয় ক্ষমতা দখলের মাধ্যমে পরবর্তীতে ওই সাড়ে বারো হাজার যুদ্ধাপরাধীকে ছেড়ে দিয়েছিলেন।
হাসানুল হক ইনু বলেন, ১৯৭২ সালের দাবী অনুযায়ী সকল যুদ্ধাপরাধীর বিচার করতে হবে। কেননা, জাতিকে কলংকমুক্ত করতে যুদ্ধাপরাধীদের বিচার করা দরকার। অপরাধীদের ফাঁসি কাষ্ঠে ঝুলিয়ে মৃত্যুদন্ড কাযকর করা উচিত।
তিনি বলেন, জিয়া যে সব যুদ্ধাপরাধীকে কারাগার থেকে ছেড়ে দিয়েছিলেন, তাদের বিচার করে জাতিকে কলংকমুক্ত করা এখন সময়ের দাবী।
তথ্যমন্ত্রী আরো বলেন, ১৯৭১ সালের ১৪ ডিসেম্বর ন্যাক্কারজনকভাবে জাতিকে মেধাশূন্য করার চক্রান্ত করা হয়। যুদ্ধের সবচেয়ে ঘৃন্য কৌশল হিসেবে দেশের শ্রেষ্ঠ বুদ্ধিজীবীদের হত্যা করা হয়েছিল। পাকিস্তানী হানাদার বাহিনীদের দোসর হিসেবে যারা এ কাজ করেছিল, তাদের মধ্যে শীর্ষ একজনের বিচার হয়েছে এবং বিচারের রায়ও কার্যকর হয়েছে।বাসস


এ পাতার অন্যান্য সংবাদ

•যুক্তরাজ্যের মানবাধিকার কর্মী জুলিয়ান ফ্রান্সিসের স্বপ্ন পূরণ হলো •কুয়াকাটা প্রেসক্লাবের সভাপতি ও সহ-সাধারন সম্পাদক নির্বাচিত হওয়ায় কলাপাড়া রিপোর্টার্স ইউনিটির সদস্য বুলেট ও মিরনকে ফুলেল শুভেচ্ছা ॥ •নন-এমপিও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো দ্রুত এমপিওভুিক্তর চেষ্টা করা হবে : শিক্ষামন্ত্রী •সরকারের উন্নয়নমূলক কর্মকান্ড সম্পর্কে তুলে ধরতে গণমাধ্যমের প্রতি তথ্য সচিবের আহ্বান •তথ্য মন্ত্রণালয়ের ১৩ সংস্থার সঙ্গে বার্ষিক কর্মসম্পাদন চুক্তি •কলাপাড়া রিপোর্টার্স ইউনিটির আয়োজনে ইফতার ও দোয়া-মিলাদ অনুষ্ঠিত •চলচ্চিত্র পরিবারের সাথে তথ্যসচিবের মতবিনিময় •ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন মূলধারার গণমাধ্যমকে নিরাপত্তা দেবে
Untitled Document
  • সর্বশেষ সংবাদ
  • সবচেয়ে পঠিত
  • এক্সক্লুসিভ

Top
Untitled Document