/* */
   Friday,  Dec 14, 2018   08:32 AM
Untitled Document Untitled Document
শিরোনাম: •স্বাধীনতা সার্বভৌমত্ব রক্ষায় সজাগ থাকতে সেনা কর্মকর্তাদের প্রতি রাষ্ট্রপতির আহ্বান •মনোনয়ন বাতিলের বিরুদ্ধে খালেদা জিয়ার আপিল ইসিতে খারিজ •মনোনয়ন না পাওয়া দলের প্রার্থীদের মহাজোট প্রার্থীর পক্ষে প্রার্থিতা প্রত্যাহারের অনুরোধ শেখ হাসিনার •নির্বাচনী প্রচারণায় ট্রাম্পকে ‘রাজনৈতিক’ সহযোগিতার প্রস্তাব দেয় রাশিয়া •টেকনোক্রেট কোন মন্ত্রী কেবিনেটে থাকছেন না : ওবায়দুল কাদের •বেগম রোকেয়া দিবস কাল •আগামীকাল থেকে ওয়েস্ট ইন্ডিজ . বাংলাদেশ। ওয়ানডে সিরিজ
Untitled Document

নিজের ওপর অর্পিত দায়িত্ব ১’শ ভাগ পালনসহ দলের জন্য আরো অনেক কিছু করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন ; শামা

তারিখ: ২০১৬-০৪-১১ ০০:২৮:৫৮  |  ২৪৫ বার পঠিত

0 people like this
Print Friendly and PDF
« আগের সংবাদ পরের সংবাদ»

 বাংলার বর্ণমালা ডেস্ক;  নিজের ওপর অর্পিত দায়িত্ব ১’শ ভাগ পালনসহ দলের জন্য আরো অনেক কিছু করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন বিএনপির নতুন সাংগঠনিক সম্পাদকের দায়িত্ব পাওয়া শামা ওবায়েদ। একইসঙ্গে ফরিদপুর বিভাগের বিএনপির সংগঠনগুলোকে আরও শক্তিশালী করার অঙ্গীকার করেছেন দলটির প্রয়াত মহাসচিব কেএম ওবায়দুর রহমানের কন্যা।

নতুন দায়িত্ব পাওয়ার পর দেয়া প্রতিক্রিয়ায় তিনি একথা বলেন। গতকাল নয়াপল্টনে এক সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির ৭ জন যুগ্ম মহাসচিব ও ৯ জন সাংগঠনিক সম্পাদকের নাম ঘোষণা করা হয়।

জাতীয় নির্বাহী কমিটি থেকে সাংগঠনিক সম্পাদক পদে পদোন্নতি পাওয়া শামা ওবায়েদ বলেন, আমাকে এই দায়িত্ব দেয়ার জন্য আমি প্রথমেই বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া, সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমান, মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ দলের সিনিয়র নেতাদের ধন্যবাদ জানাবো। এরপর যারা যুগ্ম মহাসচিব ও সাংগঠনিক সম্পাদক হয়েছেন তাদের অভিনন্দন জানাই।

তিনি বলেন, আশা করছি ঘোষিত নতুন এই কমিটি দলকে আরও বেগবান করবে। ভবিষ্যতে আন্দোলন সংগ্রামে জোরালো ভূমিকা রাখবে। আর আমাকে যেহেতু ফরিদপুর বিভাগের দায়িত্ব দেয়া হয়েছে সেহেতু অর্পিত দায়িত্ব ১০০ ভাগ পালন করতে চাই। ফরিদপুরে যেসকল বিএনপি নেতাকর্মী রয়েছেন সবার দোয়া ও সহযোগিতা কামনা করছি। একইসঙ্গে ফরিদপুর বিভাগে যেসব জেলা রয়েছে সেখানে বিএনপির সংগঠনগুলোকে আরও শক্তিশালী করবো।

অপর এক প্রশ্নের জবাবে মুক্তিযুদ্ধের প্রজন্ম দলের এই সভাপতি বলেন, বিগত আন্দোলন-সংগ্রামে বিএনপির বহু নেতাকর্মী ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন, অনেকে কারাগারে আছেন, অনেকে হুলিয়া নিয়ে ঘুরে বেড়াচ্ছেন। তাদের বিষয়টি মাথায় রেখেই দলকে কিভাবে শক্তিশালী করা যায় সেভাবে কাজ করবো।

ফরিদপুরে বিএনপির আভ্যন্তরীণ গ্রুপিং-কোন্দলের বিষয়ে শামা ওবায়েদ বলেন, সব দলেই গ্রুপিং আছে। বিএনপির মতো একটি বড় দলে গ্রুপিং থাকাটা স্বাভাবিক। কাজ করার ইচ্ছা ও স্পৃহা থাকলে গ্রুপিং কোন মুখ্য বিষয় নয়। আমি সবাইকে ঐক্যবদ্ধ করে কাজ করবো।

অপর এক প্রশ্নের জবাবে যুক্তরাষ্ট্রে উচ্চতর ডিগ্রিধারী তরুণ এই রাজনীতিবিদ বলেন, আমি যখন নির্বাহী কমিটিতে ছিলাম তখন দলের প্রয়োজনে অনেক জায়গায় কাজ করেছি। এখনও করবো।

আমার সাংগঠনিক দায়িত্বের বাইরে যেখানেই আমাকে দায়িত্ব দেবেন বিএনপি চেয়ারপারসন সেখানেই কাজ করবো। রাজপথের আন্দোলনে মাঠে থাকার বিষয়ে তিনি বলেন, আন্দোলনকে আর জোরদার করার জন্য ত্যাগি নেতাদের দিয়ে নতুন এই কমিটি করা হয়েছে। আগামীতে গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার, মানবাধিকারসহ বিভিন্ন ইস্যুতে অবশ্যই রাজপথে থাকবো।

শামা ওবায়েদ ইসলাম:

শামা ওবায়েদ ইসলাম রিংকু। বিএনপির প্রয়াত মহাসচিব কেএম ওবায়দুর রহমানের একমাত্র কন্যা। পিতার অনুসৃত পথেই হাঁটছেন তিনি। টকশোর আলোচনায় নিয়মিত দেখা যায় তাকে। রাজনীতির এই গ্ল্যামার কন্যার জন্ম ১৯৭৩ সালের ১৪ই মে।

রাজধানীর স্বনামধন্য স্কুল স্কলাশটিকায় প্রাথমিক শিক্ষাজীবন শুরু করেন। এরপর ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজে মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা নেন। উচ্চশিক্ষার জন্য পাড়ি জমান যুক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়ায়।

সেখানকার স্টেট ইউনিভার্সিটি থেকে কম্পিউটার সায়েন্সে গ্র্যাজুয়েশন ও এমবিএ ডিগ্রি নেন। এরপর দীর্ঘ ৬ বছর যুক্তরাষ্ট্রের একটি প্রাইভেট প্রতিষ্ঠানে চাকরি করেন। তবে ২০০২ সালে চাকরি ছেড়ে দেশে ফিরে আসেন তিনি। বাবা চেয়েছিলেন মেয়ে এলাকার মানুষের জন্য কাজ করবেন। পরে বাবার ইচ্ছায় রাজনীতিতে নামেন তিনি। কেএম ওবায়দুর রহমানের মৃত্যুর পর পুরোপুরি রাজনীতিতে সক্রিয় হয়ে পড়েন।

২০০৮ সালের নির্বাচনে ফরিদপুর-২ (নগরকান্দা) আসন থেকে এমপি নির্বাচন করেন। ওই নির্বাচনে হেরে গেলেও এলাকার মানুষের সুখে-দুঃখে সবসময় পাশে থাকেন তিনি। ইতিমধ্যে এলাকাবাসীর কাছে বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠেছেন তিনি।

তবে রাজনীতির বাইরে বিভিন্ন সামাজিক সংগঠন উইমেন্স এলায়েন্স ও প্রতিবন্ধীদের সংগঠনের সঙ্গে জড়িত রয়েছেন। এছাড়া বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির সদস্যের পাশাপাশি ইয়ুথ মুভমেন্ট ফর ডেমোক্রেসি ও জাতীয়তাবাদী মুক্তিযুদ্ধ প্রজন্মের সভাপতির দায়িত্ব পালন করছেন।

বিএনপির ফরেন অ্যাফেয়ার্স কমিটিরও সদস্য তিনি। কূটনৈতিক মহলেও রয়েছে তার শক্তিশালী যোগাযোগ। তবে জাতীয় স্বার্থসংশ্লিষ্ট বিভিন্ন ইস্যু নিয়ে রাজধানীতে আলোচনা সভা, মানববন্ধন কর্মসূচিতে বেশি দেখা যায় তাকে। রাজধানীতে গুম হওয়া বিএনপি নেতাকর্মীদের ফিরিয়ে দিতে রাজপথে সোচ্চার ছিলেন এই সাহসী নারী। গুমের বিরুদ্ধে জনমত গড়তে আলোচনা সভার পাশাপাশি গণস্বাক্ষর কর্মসূচি পালন করেছেন দেশব্যাপী।

এছাড়া দরিদ্র গর্ভবতী মায়েদেরও সহায়তা করেন। কাজ করছেন রিসার্চ অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট নিয়ে। এছাড়া ব্যবসার সঙ্গে জড়িত রয়েছেন তিনি। স্বামীর ব্যবসার পাশাপাশি নিজেও একটি রিয়েল এস্টেট কোম্পানি গড়েছেন। সেটার দেখভাল নিজেই করেন তিনি। একাধিক সংগঠনের সঙ্গে জড়িত থাকলেও সময় দেন সবকটিতে। তবে কোন রুটিন লাইফ পছন্দ করেন না।

ঘুম থেকে উঠেই দুই ছেলেমেয়েকে স্কুলের জন্য তৈরি করেন। এরপর নিজের প্রতিষ্ঠানের অফিসে যান। সপ্তাহে একদিন বা দুদিন মুক্তিযুদ্ধের প্রজন্মের নেতাকর্মীদের নিয়ে বসেন। তাদের সঙ্গে সংগঠনের বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আলোচনা করেন। বিএনপি চেয়ারপার্সনের কর্মসূচিগুলোতে অংশ নেন।

ব্যক্তিজীবনে বিয়েবন্ধনে আবদ্ধ হয়েছেন রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ভিসি প্রফেসর মাযহারুল ইসলামের ছেলে শোভন ইসলামের সঙ্গে। তার স্বামীও ব্যবসার পাশাপাশি সামাজিক উন্নয়নমূলক কর্মকান্ডে জড়িত। এক পুত্র ও এক কন্যা সন্তানের জনক তারা। ছেলে নবম শ্রেণীতে ও কন্যা অষ্টম শ্রেণীতে পড়াশোনা করে।

 


এ পাতার অন্যান্য সংবাদ

•কালকিনিতে ডিকে আইডিয়াল কলেজের হোস্টেল সিট বরাদ্দের অনিয়মের অভিযোগ ছাত্রদের অনশন। •আমতলীর আরপাঙ্গাশিয়া ইউনিয়নের উম্মুক্ত বাজেট ঘোষণা •আমতলীতে ৫ বিশিষ্ট ব্যক্তির স্মরণ সভা। •পরমাণু বিজ্ঞানী এম এ ওয়াজেদ মিয়ার ৯ম মৃত্যুবার্ষিকী কাল • (জ্যাক) এর বিজ্ঞপ্তি , সাংবাদিক গাজী রহমত উল্লাহ. বহিস্কার •শোক সংবাদ গোলাম মোস্তফা • ঝিনাইদহে খালার সঙ্গে অভিমানে স্কুল শিক্ষার্থীর বিষপানে আত্মহত্যা •শৈলকুপায় আবারো বাবা-মাকে মারধর ও খেতে না দেওয়ায় উপজেলা নির্বাহী কার্যালয়ে অভিযোগ দায়ের
Untitled Document
  • সর্বশেষ সংবাদ
  • সবচেয়ে পঠিত
  • এক্সক্লুসিভ

Top
Untitled Document