/* */
   Tuesday,  Dec 18, 2018   6 PM
Untitled Document Untitled Document
শিরোনাম: •স্বাধীনতা সার্বভৌমত্ব রক্ষায় সজাগ থাকতে সেনা কর্মকর্তাদের প্রতি রাষ্ট্রপতির আহ্বান •মনোনয়ন বাতিলের বিরুদ্ধে খালেদা জিয়ার আপিল ইসিতে খারিজ •মনোনয়ন না পাওয়া দলের প্রার্থীদের মহাজোট প্রার্থীর পক্ষে প্রার্থিতা প্রত্যাহারের অনুরোধ শেখ হাসিনার •নির্বাচনী প্রচারণায় ট্রাম্পকে ‘রাজনৈতিক’ সহযোগিতার প্রস্তাব দেয় রাশিয়া •টেকনোক্রেট কোন মন্ত্রী কেবিনেটে থাকছেন না : ওবায়দুল কাদের •বেগম রোকেয়া দিবস কাল •আগামীকাল থেকে ওয়েস্ট ইন্ডিজ . বাংলাদেশ। ওয়ানডে সিরিজ
Untitled Document

মন্দিরে ভয়াবহ আগুনে প্রাণহানির সংখ্যা বেড়ে ১১২, আটক

তারিখ: ২০১৬-০৪-১২ ০১:০৩:০২  |  ৩০৮ বার পঠিত

0 people like this
Print Friendly and PDF
« আগের সংবাদ পরের সংবাদ»

   বাংলার বর্ণমালা ডেস্ক;  ভারতের কেরালা রাজ্যের কোল্লম জেলার পারাভুরের পুত্তিঙ্গল দেবী মন্দিরে ভয়াবহ অগ্নিকান্ডে সোমবার প্রাণহানির সংখ্যা বেড়ে ১১২ জনে দাঁড়িয়েছে। আহত হয়েছে প্রায় ৪শ’ জন। পুলিশ মন্দির থেকে পাঁচ কর্মীকে আটক করেছে।
গত শনিবার একটি উৎসব উপলক্ষে দিবাগত রাত সাড়ে তিনটার দিকে বাজি ফোটানোর প্রতিযোগিতা চলার সময় মন্দিরে আগুন লাগে। পরে ফায়ার সার্ভিসের সদস্যরা আগুন নিয়ন্ত্রণে আনেন। শুরু হয় উদ্ধারকাজ।
পুলিশ জানায়, মন্দিরে উৎসবকে ঘিরে ১০ থেকে ১৫ হাজার মানুষ জড়ো হয়েছিলেন। 
পুলিশ রোববার মন্দিরের পাঁচ কর্মীকে আটক এবং বাজি সরবরাহকারী দুই ঠিকাদার ভারকালা কৃষ্ণকুট্টি ও কাজাকুত্তোম সুরেন্দ্রণের বিরুদ্ধে দুটি মামলা করে। কৃষ্ণকুট্টি পলাতক রয়েছে এবং আগুনে সুরেন্দ্রণ গুরুতর আহত হয়েছে। মন্দিরের গুদামঘরে বিনা অনুমতিতে ১৫০ কেজি বাজি মজুতের অভিযোগ উঠেছে সুেরন্দ্রেণের বিরুদ্ধে। পলাতক রয়েছে মন্দিরের ১৫ সদস্যের কমিটির সদস্যরা।
কোল্লম পুলিশ প্রধান পি. প্রকাশ টেলিফোনে বার্তা সংস্থা এএফপি’কে বলেন, জিজ্ঞাসাবাদের জন্য পাঁচ কর্মীকে আটক করা হয়েছে। 
তিনি বলেন, ‘এটা কেবল আনুষ্ঠানিক আটক নয়। তাদেরকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হলে ঘটনার সঙ্গে তাদের সংশ্লিষ্টতা আমরা জানতে পারবো এবং এ অনুযায়ী আরো পদক্ষেপ নেয়া হবে।’
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, বাজির প্রতিযোগিতার অনুমতি ছিল না মন্দির প্রশাসনের কাছে। অথচ শনিবার সকাল থেকেই এ নিয়ে পুরস্কার ঘোষণা করে ছড়ানো হয়েছে প্রচারপত্র। রাতে শুরু হয় বাজি ফাটানোর প্রতিযোগিত। হঠাৎই বাজির আগুনের ফুলকি গিয়ে পড়ে মন্দির চত্বরে জমা করে রাখা বাজির স্তুপে। মুহূতেই গোটা মন্দির ও মন্দির চত্বরে আগুন ছড়িয়ে পড়ে । 
রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী উম্মেন চান্ডি এ ঘটনার তদন্তের ভার দিয়েছেন হাইকোর্টের অবসরপ্রাপ্ত এক বিচারপতিকে। তদন্তে নামছে রাজ্য পুলিশের অপরাধ দমন শাখাও। 
মৃতদের আত্মীয়স্বজনকেও দশ লাখ টাকা ক্ষতিপূরণ দেয়ার কথা ঘোষণা করেন মুখ্যমন্ত্রী। ঘটনাস্থল পরিদর্শনে গিয়ে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি বলেছেন, ‘এই ঘটনা হৃদয়বিদারক ও ভয়ঙ্কর।’ 
বস্তুত বাজির জেরে এমন দুর্ঘটনা কেরালায় নতুন কিছু নয়। বেআইনি ভাবে বাজি মজুত, ও ব্যবহার চলে ব্যাপকভাবে। এ বারও তাই হয়েছে। তবে কেরালা প্রশাসনের ভাষ্য, প্রতিযোগিতামূলক ওই আতশবাজির জন্য তারা অনুমতি দেননি।
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, ‘আগুনের গোলার সঙ্গে বিকট আওয়াজ হয়। সঙ্গে সঙ্গে চারদিক অন্ধকার হয়ে যায়। ঘটনার পর চার দিকে শুধু অগ্নিদগ্ধ দেহ, রক্তমাখা কাপড় পড়ে ছিল। কোথাও পড়ে ছিল দেহাবশেষ, চটি, ভাঙা চাঙড়া। পুড়ে কালো হয়ে যাওয়া শরীরগুলো দেখে কাউকেই চেনার উপায় ছিল না।  (বাসস)


এ পাতার অন্যান্য সংবাদ

•দ. কোরিয়ার অর্থমন্ত্রী ও প্রধান নীতি নির্ধারক বরখাস্ত •যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যবর্তী নির্বাচনের পর ট্রাম্পের প্রশংসা জাপানের অ্যাবের •সৌদি আরবে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের প্রথম বিদেশ সফর •২০২৪ সাল পর্যন্ত রাশিয়ার উন্নয়ন পরিকল্পনা ‘মে ডিক্রি’ স্বাক্ষর পুতিনের •মেক্সিকোর জন্যে সবচেয়ে রক্তক্ষয়ী বছর ২০১৭ •ইসরাইল-ফিলিস্তিন সমঝোতা প্রক্রিয়া পুনরায় শুরু করতে জাতিসংঘে রাশিয়ার আহবান •রোহিঙ্গা সংকটের টেকসই সমাধানে নমপেনের সহযোগিতা কামনা ঢাকার •মিয়ানমার রোহিঙ্গাদের ফেরত নিতে সম্মত
Untitled Document
  • সর্বশেষ সংবাদ
  • সবচেয়ে পঠিত
  • এক্সক্লুসিভ

Top
Untitled Document