/* */
   Wednesday,  Jun 20, 2018   8 PM
Untitled Document Untitled Document
শিরোনাম: •বাংলাদেশের ঢাকায় কিভাবে কাটে তরুণীদের অবসর সময়? •রাশিয়া বিশ্বকাপ ফুটবল ২০১৮: ইতিহাসের বিচারে কে চ্যাম্পিয়ন হতে পারে •বাংলাদেশের উপকূলের কাছে রাসায়নিক বহনকারী জাহাজে আগুন •ঈদের যুদ্ধবিরতিতে অস্ত্র ছাড়াই কাবুলে ঢুকলো তালেবান যোদ্ধারা •বিশ্বব্যাংক প্রাথমিক শিক্ষা উন্নয়নে ৭শ’ মিলিয়ন ডলার দেবে •ঢাকা মহানগরীতে ৪০৯টি ঈদ জামাত অনুষ্ঠিত •জাতীয় ঈদগাহে রাষ্ট্রপতির ঈদের নামাজ আদায়
Untitled Document

ঢাকা সিটির ব্যানার-ফেস্টুন তাৎক্ষণিক অপসারণের নির্দেশ.হাইকোর্ট।

তারিখ: ২০১৬-১১-০২ ২৩:০০:২১  |  ৪৮৫ বার পঠিত

0 people like this
Print Friendly and PDF
« আগের সংবাদ পরের সংবাদ»

ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের বিভিন্ন রাস্তা, ফুটপাত, সড়কদ্বীপ, রোড ডিভাইডারে লাগানো ব্যানার-ফেস্টুন তাৎক্ষণিক অপসারণের নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। একইসঙ্গে সিটি কর্পোরেশনের অনুমতি ছাড়া বিলবোর্ড, ব্যানার, পোস্টার, ফেস্টুন, গেট, তোরণ, দেয়াল লিখন ইত্যাদি অপসারণে চলমান প্রক্রিয়া (সিটি কর্পোরেশনের কার্যক্রম) অব্যাহত রাখারও নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।

এ সংক্রান্ত এক রুল নিষ্পত্তি করে হাইকোর্টের বিচারপতি মো. রেজাউল হক ও বিচারপতি মুহাম্মদ খুরশীদ আলম সরকারের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ এ আদেশ দেন।

আদালতে আজ সিটি কর্পোরেশনের পক্ষে শুনানি করেন অ্যাডভোকেট মো. শাহজাহান। রিটকারী সংগঠন পরিবেশ আইনবিদ সমিতির (বেলা) পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী মিনহাজুল ইসলাম। অপরদিকে রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল মো. খুরশিদুল আলম।

এর আগে গত ২২ আগস্ট দক্ষিণ ও উত্তর সিটি কর্পোরেশন হাইকোর্টে প্রতিবেদন দাখিল করে। দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের প্রতিবেদনে বলা হয়, গত এক বছরে বিভিন্ন রাস্তা, ফুটপাত, সড়কদ্বীপ হতে প্রায় ৪৪ হাজার ব্যানার, ফেস্টুন ও পোস্টার অপসারণ করেছে। এর মধ্যে অপসারিত ব্যানার ১১ হাজার ২৭৪টি, ফেস্টুন ১৩ হাজার ৯০৫টি এবং পোস্টার ১৮ হাজার ৭২৪টি। এছাড়া ৫৭৭টি বিলবোর্ড অপসারণ করা হয়েছে। নগরীকে সুন্দর, পরিচ্ছন্ন ও বসবাসযোগ্য রাখার লক্ষ্যে এই অপসারণ কার্যক্রম বর্তমানে চলমান।

উত্তর সিটি কর্পোরেশনের পক্ষ থেকে দেয়া এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, সিটি কর্পোরেশনের আওতাধীন এলাকায় অননুমোদিত বিভিন্ন প্রকার বিলবোর্ড, ব্যানার, পোস্টার, ফেস্টুন, গেট, তোরণ, দেয়াল লিখন ইত্যাদি অপসারণে কর্পোরেশনের কার্যক্রম চলমান। ইতোমধ্যে এই অপসারণ কার্যক্রম ৯০ ভাগ বাস্তবায়ন হয়েছে।

এছাড়া কর্পোরেশনের বর্জ্য ব্যবস্থাপনা কর্মকর্তাকে এই অপসারণ কার্যক্রম বাস্তবায়নে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। সব আঞ্চলিক কর্মকর্তাকে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট হিসেবে নিয়োগ দেয়া হয়েছে।  

রাজধানীতে অননুমোদিত সব পোস্টার, ব্যানার ও তোরণ ২২ আগস্টের মধ্যে অপসারণের নির্দেশ দেন হাইকোর্ট। একইসঙ্গে দেয়াল লিখনও মুছে ফেলতে বলা হয়। হাইকোর্টের ওই নির্দেশ মোতাবেক এই হলফনামা দাখিল করা হয়।

বাংলাদেশ পরিবেশ আইনবিদ সমিতির (বেলা) এক আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ২০১২ সালের ১৮ মার্চ হাইকোর্ট এক আদেশে অননুমোদিত সব পোস্টার, ব্যানার ও তোরণ অপসারণের নির্দেশ দেন। একই সঙ্গে রুল জারি করেন। সেই রুল নিষ্পত্তি করে বুধবার হাইকোর্ট বিভিন্ন রাস্তা, ফুটপাত, সড়কদ্বীপ, রোড ডিভাইডারে ব্যানার-ফেস্টুন লাগালে তা তাৎক্ষণিকভাবে অপসারণের নির্দেশ দেন।


এ পাতার অন্যান্য সংবাদ

•বেসিক ব্যাংকের দুর্নীতি মামলার সব তদন্ত কর্মকর্তাকে আদালতে তলব •খালেদা জিয়ার মাথায় আরো যেসব মামলা ঝুলছে •নিখোঁজ হবার প্রায় চারমাস পর 'গ্রেপ্তার' বাংলাদেশ কল্যাণ পার্টির মহাসচিব, চারদিনের রিমান্ডে •ডেসটিনির দুই শীর্ষ কর্তার আবেদন খারিজ •প্রথমে ছেলে, পরে বাপ এসে আমার ওপর নির্যাতন করে' •ঝিনাইদহে সার কারখানা থেকে বিপুল পরিমান সালফিউরিক এ্যাসিড জব্দ, লাইসেন্স বাতিল, জরিমানা •হাইড্রোলিক হর্ন ১৫ দিনের মধ্যে থানায় জমা দিতে হবে : হাইকোর্ট •ঝিনাইদহে ৭ বছর পর রিপন হত্যা মামলায় মৃত্যুদন্ডের আদেশ
Untitled Document
  • সর্বশেষ সংবাদ
  • সবচেয়ে পঠিত
  • এক্সক্লুসিভ

Top
Untitled Document