/* */
   Monday,  Dec 17, 2018   06:59 AM
Untitled Document Untitled Document
শিরোনাম: •স্বাধীনতা সার্বভৌমত্ব রক্ষায় সজাগ থাকতে সেনা কর্মকর্তাদের প্রতি রাষ্ট্রপতির আহ্বান •মনোনয়ন বাতিলের বিরুদ্ধে খালেদা জিয়ার আপিল ইসিতে খারিজ •মনোনয়ন না পাওয়া দলের প্রার্থীদের মহাজোট প্রার্থীর পক্ষে প্রার্থিতা প্রত্যাহারের অনুরোধ শেখ হাসিনার •নির্বাচনী প্রচারণায় ট্রাম্পকে ‘রাজনৈতিক’ সহযোগিতার প্রস্তাব দেয় রাশিয়া •টেকনোক্রেট কোন মন্ত্রী কেবিনেটে থাকছেন না : ওবায়দুল কাদের •বেগম রোকেয়া দিবস কাল •আগামীকাল থেকে ওয়েস্ট ইন্ডিজ . বাংলাদেশ। ওয়ানডে সিরিজ
Untitled Document

আমতলীতে দুই শ্রমিক ইউনিয়নের মধ্যে সংঘর্ষ,পুলিশের ওসিসহ আহত ৯ পুলিশের ভ্যানসহ ১৬টি মাহেন্দ্র ভাংচুর,আটক ১৯ জন

তারিখ: ২০১৭-০২-১৩ ২৩:৫৬:০২  |  ২৬৩ বার পঠিত

0 people like this
Print Friendly and PDF
« আগের সংবাদ পরের সংবাদ»

আমতলী (বরগুনা) প্রতিনিধি ।।  
বরগুনার আমতলীতে সোমবার সকালে মাহেন্দ্র ও বাসশ্রমিকদের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। উত্তেজিত শ্রমিকরা এসময় ১৬টি ত্রিহুইলার যান্ত্রিক যান (মাহেন্দ্র’র) কাঁচ ভাংচুর করে।  সংঘর্ষের সময় শ্রমিকদের নিক্ষিপ্ত ইটের আগাতে পুলিশ টহল ভ্যানের কাঁচ ভেঙ্গে যায়।  দুই গ্রুপের সংঘর্ষের সময় ইটের আঘাতে ৬ পুলিশ কর্মকর্তাসহ ৯ জন আহত হয়। আহতদের আমতলী ও বরিশাল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। সংঘর্ষের পরপরই অভিযান চালিয়ে পুলিশ বিভিন্ন এলাকা থেকে ১৯ জনকে আটক করে।
পুলিশ ও প্রত্যাক্ষ দর্শী সূত্রে জানা গেছে, সোমবার সকাল সাড়ে ৮টার দিকে বাস শ্রমিক ইউনিয়নের শ্রমিকরা আমতলী-কলাপাড়া-তালতলী মহসড়কের খেয়াঘাট ও মানিক ঝুরি নামক স্থানে ত্রিহুইলার যান্ত্রিক যান  (মাহেন্দ) চলাচলে বাঁধার সৃষ্টি করে এবং ১৬টি মাহেন্দ্র ভাংচুর করে। এখবর ছড়িয়ে পড়লে উত্তেজিত থ্রিহুইলার শ্রমিক ইউনিয়নের কর্মীরা বিভিন্ন সড়কে তাদের গাড়ি চলাচল বন্দ করে আমতলী শহরের বটতলা নামক স্থানে তাদের সমিতির কার্যালয়ে জড়ো হতে থাকে।  সকাল ১০টার দিকে তারা একত্রিত হয়ে চৌরাস্তা মোড়ের দিকে অগ্রসর হলে বিপরীত দিকে অবস্থান করা বাসশ্রমিকদের সাথে তাদের ধাওয়াপল্টার ঘটনা ঘটে এবং ইটপাটকেল নিক্ষেপের ঘটনা ঘটে। শ্রকিদের ইটের আঘাতে টহল পুলিশের ভ্যানের কাঁচ ভেঙ্গে যায়। এসময় পুরো এলাকা রনক্ষেত্রে পরিনত হয়। দোকপাট বন্ধ করে দোকানিরা নিরাপদ আশ্রয়ে চলে যায়। পুলিশ লাঠিচার্জ করে শ্রমিকদের তখন ছত্রভঙ্গ করে দেয়। দুই গ্রুপের ধাওয়া পল্টা ধাওয়ার সময় আমতলী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো: সহিদুল্লাহ (৫০), তদন্ত কর্মকর্তা নুরুল ইসলাম বাদল (৩৮), এসআই মনিরুল ইসলাম (৪০),  এসআই সজল (৩৮)ও কনেস্টবল হাবিব (৫০),মোতালেব(৫৮)সহ ৬ পুলিশ এবং মিজানুর রহমান, রাসেল ও ইব্রাহিম নামে ৩ শ্রমিকসহ ৯ জন আহত হয়। আহতদের মধ্যে মিজানুর রহমান, রাসেল ও ইব্রাহিমের অবস্থা গ্ররুতর হওয়ায় তাদের বরিশাল মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে উন্নত চিকিৎসার জন্য পাঠানো হয়েছে। পুলিশের ৪কর্মকর্তা আমতলী হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়েছে। কনেস্টবল মোতালেব ও হাবিবুর রহমানকে আমতলী হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। ঘটনার খবর পেয়ে বরগুনার পুলিশ সুপার বিজয় বসাক পিপিএম ও বরগুনার অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) নুরুজ্জামান, আমতলী উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো: মুশফিকুর রহমান এবং আমতলী-তালতলী সার্কেলের সহকারী পুলিশ সুপার মো: আব্দুল ওয়ারেচ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে পরিস্থিতি শান্ত করার চেষ্টা করেন।
সংঘর্ষের পরপরই শহরে চৌরাস্তা মোর সহ শহরের বিভিন্ন এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়। ঘটনার পরপরই পুলিশ বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালিয়ে ১৯জন শ্রমিককে আটক করে। আটককৃতরা হল,দুলাল চৌকিদার, জুয়েল গাজী, সোলায়মান, বাবুল সরদার, নাসির গাজী, মিলন ব্যাপরী,রুবেল মৃধা, জাফর মৃধা, ফারুক প্যাদা, সোনা মিয়া, মাসুম বিল্লাহ, মহিন হাওলাদার, মহাসিন হাওলঅদার, আলমগীর প্যাদা, আলআমিন, হরিপদ হালদার, আলআমিন, সাকুর দফাদার ও আবুল হোসেন।
বরগুনা জেলা যান্ত্রিকযান ত্রিহুইলার শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি মো: জহিরুল ইসলাম খোকন মৃধা জানান, আমতলী-কলাপাড়া-তালতলী-পটুয়াখালী মহাসড়কে  ত্রিহুইলার যান্ত্রিকযান চলাচলের আদেশ থাকলেও বাসমালিক সমিতির লোকজন অহেতুক ভাবে সোমবার সকালে আমাদের গাড়ি চলাচলে বাঁধার সৃষ্টি করে এবং ১৬টি ত্রি হুইলার যান্ত্রিকযান (মাহেন্দ্র’র) কাঁচ ভাংচুর করে প্রায় কয়েক লক্ষ টাকার ক্ষতি করে।  
বরগুনা জেলা বাস মালিক সমিতির সম্পাদক শোহেল গাজী জানান,  মহাসড়কে ত্রিহুইলার যান্তিক যান চলাচলে নিষেঞ্জা থাকলেও তা অমান্য করে চালানোর কারনে আমাদের বাস শ্রমিকরা বাঁধা দেওয়ায় তাদের উপর ত্রিহুইলার যান্তিক যান চালকরা হামলা করে। হামলায় আমাদের ৩ শ্রমিক আহত হয়েছে। তাদেরকে বরিশাল পাঠানো হয়েছে। সংংঘর্ষের জন্য ত্রিহুইলার যান্তিক যান শ্রমিকরা দায়ী। এছাড়া পরবর্তীতে করনীয় নিয়ে আমরা সমিতির জরুরী সভা ডেকেছি । সভার সিদান্ত অনুযায়ী পরবর্তী পরিস্থিতি করনীয় নিয়ে আলোচনা করা হবে।  
আমতলী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো: সহিদুল্লাহ জানান, সড়কে প্রতিবন্ধকতা, পুলিশের গাড়ি ভাংচুর,এবং পুলিশের উপর হামলার ঘটনায় জরুরী আইনে মামলার প্রস্তুতি চলছে। এঘটনার সাথে জড়িত থাকায় ১৯ জনকে আটক করা হয়েছে। এছাড়া শহরে অতিরিক্তি পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। বর্তমানে পরিস্থিতি শান্ত রয়েছে।


এ পাতার অন্যান্য সংবাদ

•মনোনয়নপত্র বাতিলে হাওলাদারের আপিল খারিজ •যতবার নারায়ণগঞ্জ জেগেছে, ততবার বাংলাদেশ জেগেছে। নারায়ণগঞ্জ থেকে অনেক আন্দোলন হয়েছে। শামীম ওসমান এম পি •টঙ্গীবাড়িতে চাঁদা না দেওয়ায় সন্ত্রাসীদের হামলায় আহত ২ •সংবাদ সম্মেলন . পদ্মা ইসলামী লাইফ ইন্সুরেন্স কোম্পানি কর্তৃক গ্রাহকের টাকা আত্মসাতের অভিযোগ •রোহিঙ্গা বসতিতে কক্সবাজারের জীববৈচিত্র্য হুমকির মুখে : ইউএনডিপি •কলাপাড়ায় স্লুইস সংস্কার ও রাস্তা মেরামতের দাবীতে শিক্ষার্থীদের মানববন্ধন। •চোরাই মালমাল ও চুরির কাজে ব্যবহৃত সরঞ্জামসহ চিহ্নিত চোর মনির আটক ॥ •শিবচরে জাতীয় মৎস্য সপ্তাহ ২০১৮ উদযাপন উপলক্ষ্যে মূল্যায়ন,পুরষ্কার বিতরন ও সমাপনী অনুষ্ঠান
Untitled Document
  • সর্বশেষ সংবাদ
  • সবচেয়ে পঠিত
  • এক্সক্লুসিভ

Top
Untitled Document