/* */
   Tuesday,  Sep 25, 2018   2 PM
Untitled Document Untitled Document
শিরোনাম: •পবিত্র আশুরা উপলক্ষে নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে : আছাদুজ্জামান মিয়া •বান্দরবানে কৃষি ব্যাংকের উদ্যোগে সিংগেল ডিজিট সুদে ঋণ বিতরণ •সৌদি আরবে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের প্রথম বিদেশ সফর •জাতিসংঘ অধিবেশনে যোগদিতে শুক্রবার প্রধানমন্ত্রীর লন্ডনের উদ্দেশে ঢাকা ত্যাগ •রোহিঙ্গা বসতিতে কক্সবাজারের জীববৈচিত্র্য হুমকির মুখে : ইউএনডিপি •মর্যাদার লড়াইয়ে আজ মুখোমুখি ভারত ও পাকিস্তান •সংসদে জাতীয় দক্ষতা উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ বিল, ২০১৮ পাস
Untitled Document

সমকামী এক বাংলাদেশির অভিজ্ঞতা: 'আমি এখন পরিবারের বিষফোঁড়া'

তারিখ: ২০১৭-০৫-২১ ০০:৩৪:০৩  |  ২০৭ বার পঠিত

0 people like this
Print Friendly and PDF
« আগের সংবাদ পরের সংবাদ»

বাংলাদেশে সমকামীরা ভয়ে তাদের যৌন পরিচয় প্রকাশ করেন না

বাংলাদেশে সমকামীদের মধ্যে যৌন সম্পর্ক আইনত নিষিদ্ধ। সমকামীরা সেখানে নিগ্রহের ভয়ে সাধারণত তাদের যৌন পরিচয় প্রকাশ করেন না। গত বছর বাংলাদেশ দুজন নেতৃস্থানীয় সমকামী অধিকার কর্মীকে হত্যা করে জঙ্গিরা। শুক্রবার ঢাকার কাছে কেরানিগঞ্জে এক অনুষ্ঠান থেকে গ্রেফতার করা হয় ২৭ জনকে। বাংলাদেশে একজন সমকামী আসলে কতটা নিরাপদ? সমাজ এবং পরিবার কী আচরণ করে তাদের সঙ্গে? বিবিসি বাংলার আকবর হোসেন নাম-পরিচয় গোপন রাখার শর্তে কথা বলে এক সমকামী বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রের সঙ্গে। বিবিসিকে তিনি তার অভিজ্ঞতা বর্ণনা করেছেন এভাবে:

"আমি যে সমকামী, সেটা আমার পরিবার জানে। আমার বন্ধুরাও জানে। আমি যে সমকামী এবং সেম সেক্স একটিভিষ্ট, এটা জানার পর আমি আমার পরিবারের বিষফোঁড়ায় পরিণত হলাম।

আমার বন্ধুরা, ছোট থেকে যাদের সাথে এক সঙ্গে বড় হলাম, তারা আমাকে ছেড়ে দিল।

আমার বন্ধুরা আমাকে দেখতে পারে না। আমি যখন শুক্রবার মসজিদে নামাজ পড়তে যাই, তখন আমাকে বলে, তুমি মসজিদে আসছো কেন? ওরা আমাকে আমার নাম ধরে পর্যন্ত আর ডাকে না।

আমি তখন স্কুলে পড়ি। তখন আমি টের পাই, আমি অন্য স্বাভাবিক মানুষের মতো নই। আমি একটা ভুল শরীরে জন্মগ্রহণ করেছি।

আমি আমার বাবাকে কেঁদে কেঁদে সব খুলে বললাম। বাবা সব শুনে বিষয়টা পজিটিভলি নিয়েছে।

বাবা তখন আমাকে বুঝিয়ে বললো, তুমি যেটা করছো, সেটা আমাদের দেশে, আমাদের সমাজে, আমাদের ধর্মে গ্রহণযোগ্য নয়। আমি দেখি তোমাকে বাংলাদেশ থেকে কোথাও পাঠিয়ে দিতে পারি কীনা।

  গত বছর নিহত হন সমকামী অধিকার কর্মী জুলহাস মান্নান

আমার কোন বন্ধু নেই।

২০১১ সাল থেকে আমার মা আমার সঙ্গে কথা বলেন না। একদম কথা বলা বন্ধ করে দিয়েছেন। আমার বাবা আমার সঙ্গে কথা বলেন। আমার বাবা আমার বেস্ট ফ্রেন্ড। আমি আনন্দিত যে আমার বাবা আমাকে ফেলে দেননি।

কিন্তু আমার মা এটা মেনে নিতে পারেন নি যে আমি কখনোই কোন মেয়েকে বিয়ে করবো না। আমি একটা ছেলের সঙ্গে থাকবো। আমি কখনো কোন সন্তানের জন্ম দিবো না। এটার জন্য মা মন খারাপ করে।

ধর্মীয় দৃষ্টিকোণ থেকে হাদিস কোরান পড়ে মা যা বুঝেছে, সে বিশ্বাস করে যে, এটা অবৈধ, খারাপ। সেজন্য মা আমার সঙ্গে কথা বলে না।

আমি মুসলিম পরিবারের ছেলে। আমার আল্লাহ আমাকে পাঠিয়েছে সমকামী করে। মেডিক্যাল সায়েন্স বলে, একজন মানুষ কিন্তু মার্তৃগর্ভ থেকেই সমকামী হিসেবে জন্ম নেয়। এটা মানসিক রোগ নয়।

আমার একটা ছোট বোন আছে। এখনো ছোট। অনেক কিছু বোঝে না। কিন্তু আমি চাই সে এমন ভাবে বড় হোক, যাতে আমাদের বুঝতে পারে।বাংলাদেশের মানুষ যখন জানতে পারে কোন মানুষ সমকামী, তখন তারা ভয় পায়। আমরা স্বাভাবিক মানুষ। আমরা ভয়ের কোন কারণ নই। আমাদের সেক্সুয়াল আচরণ এবং দৈহিক গঠন, দুটাই স্বাভাবিক। সমকামিতা পুরোটাই স্বাস্থ্যকর, এটা অস্বাস্ব্যকর নয়।

বাংলাদেশে আমরা যারা সমকামী, তারা সবসময় ভয়ে ভয়ে থাকি। আমরা আমাদের নিজের দেশে যতক্ষণই বেঁচে আছি, আমাদের মনে হয় আমরা নিরাপদ নই।

এদেশে এখনো আমাদের 'ভূমিকম্পের' কারণ বলে গণ্য করা হয়।

কেরানিগঞ্জে যেটা ঘটেছে সেটা খুবই দুঃখজনক একটা ঘটনা, খুবই খারাপ একটা বিষয়। আমরা এরকম অনুষ্ঠান করে থাকি।

 ছবির কপিরাইট. বাংলাদেশে সমকামিতা এখনো পর্দার আড়ালে

আমরা তাহলে কোথায় অনুষ্ঠান করবো? আমরা যদি থানায় গিয়ে বলি যে আমরা লেসবিয়ান ও গে রাইট এক্টিভিষ্টরা একটা অনুষ্ঠান করতে চাই, আমাদের তো পারমিশন দেবে না।

আমি গত বছর মার্কিন দূতাবাসে গিয়েছিলাম, হিউম্যানিটারিয়ান প্যারোলের আবেদন করার জন্য। জুলহাস মান্নান এবং তনয় খুন হওয়ার পরপরই কিছু অপরিচিত মানুষ আমাকে ফলো করেছিল। আমি খুব ঘাবড়ে গিয়েছিলাম। আমার ঠিকানা বদল করেছিলাম। বাসায় থাকতাম না। আমি বাধ্য হয়েছিলাম মার্কিন দূতাবাসে গিয়ে সাহায্য চাইতে। ওরা আমাকে হেল্প করেছে কিছু ইনফরমেশন দিয়ে।

কিন্তু আমার প্রশ্ন হচ্ছে আমি কেন নিজের দেশে থাকতে পারবো না। আমি আসলে কি, সেটা কেন আমাকে অন্য দেশে গিয়ে প্রকাশ করতে হবে।

আমি এখন পরগাছার মতো। মা পৃথিবীতে সবচেয়ে আপন জন। সেই মা আমাকে দেখতে পারে না। ছেলে সমকামী সেই অপরাধে মা কথা বলে না। কাজেই সেই বাসায় থাকা না থাকা একই কথা। আমি বাসায় খুব কম থাকি এখন।

আমার দেশে সমপ্রেমের সাতকাহনের কোন জায়গা নেই। যেখানেই যাই, আমাদের মেরে ফেলবে।"  

বিবিসি

এ পাতার অন্যান্য সংবাদ

•কালকিনিতে ডিকে আইডিয়াল কলেজের হোস্টেল সিট বরাদ্দের অনিয়মের অভিযোগ ছাত্রদের অনশন। •আমতলীর আরপাঙ্গাশিয়া ইউনিয়নের উম্মুক্ত বাজেট ঘোষণা •আমতলীতে ৫ বিশিষ্ট ব্যক্তির স্মরণ সভা। •পরমাণু বিজ্ঞানী এম এ ওয়াজেদ মিয়ার ৯ম মৃত্যুবার্ষিকী কাল • (জ্যাক) এর বিজ্ঞপ্তি , সাংবাদিক গাজী রহমত উল্লাহ. বহিস্কার •শোক সংবাদ গোলাম মোস্তফা • ঝিনাইদহে খালার সঙ্গে অভিমানে স্কুল শিক্ষার্থীর বিষপানে আত্মহত্যা •শৈলকুপায় আবারো বাবা-মাকে মারধর ও খেতে না দেওয়ায় উপজেলা নির্বাহী কার্যালয়ে অভিযোগ দায়ের
Untitled Document
  • সর্বশেষ সংবাদ
  • সবচেয়ে পঠিত
  • এক্সক্লুসিভ

Top
Untitled Document