/* */
   Wednesday,  Dec 19, 2018   05:51 AM
Untitled Document Untitled Document
শিরোনাম: •স্বাধীনতা সার্বভৌমত্ব রক্ষায় সজাগ থাকতে সেনা কর্মকর্তাদের প্রতি রাষ্ট্রপতির আহ্বান •মনোনয়ন বাতিলের বিরুদ্ধে খালেদা জিয়ার আপিল ইসিতে খারিজ •মনোনয়ন না পাওয়া দলের প্রার্থীদের মহাজোট প্রার্থীর পক্ষে প্রার্থিতা প্রত্যাহারের অনুরোধ শেখ হাসিনার •নির্বাচনী প্রচারণায় ট্রাম্পকে ‘রাজনৈতিক’ সহযোগিতার প্রস্তাব দেয় রাশিয়া •টেকনোক্রেট কোন মন্ত্রী কেবিনেটে থাকছেন না : ওবায়দুল কাদের •বেগম রোকেয়া দিবস কাল •আগামীকাল থেকে ওয়েস্ট ইন্ডিজ . বাংলাদেশ। ওয়ানডে সিরিজ
Untitled Document

দেশে ফিরলেন অস্ট্রেলিয়ার 'গাঞ্জা কুইন

তারিখ: ২০১৭-০৫-২৯ ০০:০৭:৩৩  |  ১৮৮ বার পঠিত

0 people like this
Print Friendly and PDF
« আগের সংবাদ পরের সংবাদ»

২০০৭ সালে তাকে ঘিরে তৈরি করা হয়েছিল তথ্যচিত্র "গাঞ্জা কুইন" বা গাজার রানী।

মাদক পাচারকারী হিসেবে সাজাপ্রাপ্ত অস্ট্রেলিয়ার চ্যাপেলে করবি ইন্দোনেশিয়ায় দীর্ঘ নয়বছরের কারাবাস এবং তিনবছরের প্যারোলে মুক্তি শেষে ব্রিসবেনে ফিরে গেছেন।

সাবেক এই বিউটি থেরাপিস্ট ২০০৪ সালে বালি এয়ারপোর্টে গ্রেপ্তার হন মাদক বহনের দায়ে । সেসময় তার কাছে চার কেজির বেশি মারিজুয়ানা লুকানো অবস্থায় পাওয়া যায়।

পরের বছর তার বিচারের রায় দেয়া হয়। তার মামলাটিকে ঘিরে অস্ট্রেলিয়া এবং ইন্দোনেশিয়ার মধ্যে কূটনৈতিক সম্পর্কে টানাপড়েন দেখা দেয়।

তার শাস্তিকে অতিরিক্ত কঠোর হিসেবে হিসেবে উল্লেখ করে এর তীব্র প্রতিক্রিয়া দেখা যায় অস্ট্রেলীয়দের মধ্যে।

১৩ বছর আগে তিনি যখন গ্রেপ্তার হন সে তখনজাতীয় ইস্যুতে পরিণত হন।

যদিও সর্বদাই নিজেকে নির্দোষ দাবি করে আসেন এই নারী।

২০০৭ সালে তাকে ঘিরে তৈরি করা হয়েছিল তথ্য চিত্র "গাঞ্জা কুইন" বা গাজার রানী।

ছবির কপিরাইট    তার মামলাটিকে ঘিরে অস্ট্রেলিয়া এবং ইন্দোনেশিয়ার মধ্যে কূটনৈতিক সম্পর্কে টানাপড়েন দেখা দেয়।

প্যারোলে মুক্তির পর গত তিনবছর তিনি ইন্দোনেশীয় ছেলে-বন্ধুর সাথে বসবাস করছিলেন।

অস্ট্রেলিয়া তার বিষয়ে এখনো বিভক্ত। সে আসলেই অপরাধী নাকি ষড়যন্ত্রের শিকার-সেটার উত্তর খুঁজছে তারা। তবে ইন্দোনেশিয়ায় সে রকম ব্যাপার নেই। সাবেক বিউটি থেরাপিস্টকে তারা দেখছে আর সব অপরাধীর মতই।

করবির প্রস্থানের সময় সহায়তার জন্য শত শত পুলিশ নিয়োজিত করা হয়। তার বোন মার্সিডিজ ইন্দোনেশিয়াতে বসবাস করেন।

করবিকে যখন গাড়ির দিকে নিয়ে যাওয়া হচ্ছিল তখন সাংবাদিকদের ক্যামেরা থেকে তাকে দূরে রাখার চেষ্টা করছিলেন তার বোন।

ইন্দোনেশিয়ার মাদক সংক্রান্ত আইন অস্ট্রেলিয়ার তুলনায় অনেক কঠোর। ২০১৫ সালে আরও দুজন অস্ট্রেলীয় নাগরিককে মৃত্যুদণ্ড দেয়া হয়।বিবিসি


এ পাতার অন্যান্য সংবাদ

•নির্বাচনী প্রচারণায় ট্রাম্পকে ‘রাজনৈতিক’ সহযোগিতার প্রস্তাব দেয় রাশিয়া •সিরিয়ায় অস্ত্রবিরতি জোনে সরকারি বাহিনীর হামলায় ২২ বিদ্রোহী নিহত •রোহিঙ্গা সংকট: মিয়ানমারে এখনও সহিংসতা ও গণহত্যা চলছে বলে দাবি করছে জাতিসংঘ •জামাল খাসোগজি হত্যাকাণ্ড সম্পর্কে সর্বশেষ সৌদি ভাষ্য: হত্যা নয়, অপহরণই ছিল উদ্দেশ্য •ভারতে ঘূর্ণিঝড় তিতলিতে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৫৭ হয়েছে •ইয়েমেনে ৫২ লাখ শিশু দুর্ভিক্ষের ঝুঁকিতে •মগজ ধোলাই হয়ে উগ্রপন্থী হয়েছিল আমার ছেলে' - বলছেন ওসামা বিন লাদেনের মা •কলম্বিয়ায় শান্তি প্রক্রিয়ার মাঝে ‘অব্যাহত নিরাপত্তাহীনতায়’ নিরাপত্তা পরিষদের উদ্বেগ .
Untitled Document
  • সর্বশেষ সংবাদ
  • সবচেয়ে পঠিত
  • এক্সক্লুসিভ

Top
Untitled Document