/* */
   Monday,  Dec 17, 2018   11:29 AM
Untitled Document Untitled Document
শিরোনাম: •স্বাধীনতা সার্বভৌমত্ব রক্ষায় সজাগ থাকতে সেনা কর্মকর্তাদের প্রতি রাষ্ট্রপতির আহ্বান •মনোনয়ন বাতিলের বিরুদ্ধে খালেদা জিয়ার আপিল ইসিতে খারিজ •মনোনয়ন না পাওয়া দলের প্রার্থীদের মহাজোট প্রার্থীর পক্ষে প্রার্থিতা প্রত্যাহারের অনুরোধ শেখ হাসিনার •নির্বাচনী প্রচারণায় ট্রাম্পকে ‘রাজনৈতিক’ সহযোগিতার প্রস্তাব দেয় রাশিয়া •টেকনোক্রেট কোন মন্ত্রী কেবিনেটে থাকছেন না : ওবায়দুল কাদের •বেগম রোকেয়া দিবস কাল •আগামীকাল থেকে ওয়েস্ট ইন্ডিজ . বাংলাদেশ। ওয়ানডে সিরিজ
Untitled Document

আউশ ধানের উৎপাদন বাড়াতে কৃষকদের ৪০ কোটি টাকার বীজ ও সার দেবে সরকার কৃষিমন্ত্রী

তারিখ: ২০১৮-০২-০৮ ১২:৩৫:১৯  |  ১১২ বার পঠিত

0 people like this
Print Friendly and PDF
« আগের সংবাদ পরের সংবাদ»

  আউশ ধানের উৎপাদন বাড়াতে দেশের ২ লাখ ৩৭ হাজার ক্ষুদ্র ও প্রান্তিক কৃষককে বিনামূল্যে ৪০ কোটি টাকার বীজ ও রাসায়নিক সার দেবে সরকার।
  বুধবার দুপুরে কৃষি মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে কৃষিমন্ত্রী বেগম মতিয়া চৌধুরী এ কথা জানান।
মতিয়া চৌধুরী বলেন, বলেদেশের ৬৪ জেলার কৃষকদের উফশী আউশের জন্য ৩২ কোটি ৩৩ লাখ ৫৩ হাজার ১৭০ টাকা এবং ৪০ জেলার কৃষকদের নেরিকা আউশ আবাদে সাত কোটি ২৯ লাখ ৩০ হাজার ৭৫ টাকা বীজ ও সার বিতরণ করা হবে।
তিনি বলেন, এসব বীজ ও সার বিতরণে মোট খরচ হবে ৩৯ কোটি ৬২ লাখ ৮৩ হাজার ২৪৫ টাকা। এই প্রণোদনার ফলে দুই লাখ ৩৭ হাজার ১৮২ বিঘা জমিতে আউশ ধান চাষ করা যাবে।
কৃষিমন্ত্রী জানান, উফশী ধানের ক্ষেত্রে এক বিঘা জমির জন্য পাঁচ কেজি ধান বীজ, ২০ কেজি ইউরিয়া, ১০ কেজি ডিএপি এবং ১০ কেজি এমওপি সার সহায়তা দেওয়া হবে। এতে বিঘাপ্রতি ব্যয় হবে এক হাজার ৫৯৭ টাকা ৫০ পয়সা।
তিনি জানান, নেরিকা আউশ ধান চাষে একজন কৃষককে এক বিঘা জমির জন্য পাঁচ কেজি ধান বীজ, ২০ কেজি ইউরিয়া, ১০ কেজি ডিএপি এবং ১০ কেজি এমওপি সার এবং সেচ খরচ বাবদ ৫০০ টাকা ও আগাছা দমনের জন্য আরও ৫০০ টাকা পাবেন। এতে বিঘাপ্রতি ব্যয় হবে দুই হাজার ১১৫ টাকা।
এ বছরের মার্চের শেষ দিকে প্রণোদনার এই অর্থ ছাড় করা হবে জানিয়ে মতিয়া চৌধুরী বলেন, এ সংক্রান্ত সরকারের কমিটি সুবিধাভোগী কৃষকদের তালিকা চূড়ান্ত করবে। কেউ একা কোনো সিদ্ধান্ত নিতে পারবে না।
সংবাদ সাম্মেলনে কৃষিমন্ত্রী জানান, এ মৌসুমে মোট ২ লাখ ৩৭ হাজার ১৮২ বিঘা জমিতে আউশ ধান চাষ করা হবে। প্রণোদনা কার্যক্রমের আওতায় বিনামূল্যে বীজ, রাসায়নিক সার ও কৃষি উপকরণ সহায়তা দেওয়া হবে।
সংবাদ সম্মেলনে কৃষিমন্ত্রী বলেন, গত বছর বোরো উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা অর্জন করতে না পারলেও আউশ ধান উৎপাদনে সেই ঘাটতি অনেকটা পুষিয়ে দিয়েছি। এ বছর ৫ লাখ মেট্রিক টন অতিরিক্ত আউশ ধান উৎপাদিত হয়েছে।
মতিয়া চৌধুরী বলেন, হাওর অঞ্চলে আগাম বন্যা এবং পরে দেশের ৫৩ জেলায় বন্যার কারণে বোরো উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা ব্যাহত হয়েছে। এ বছর বোরো উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা এক কোটি ৯০ লাখ মেট্রিক টন নির্ধারণ করা হয়েছে বলে জানান তিনি।
সংবাদ সম্মেলনে কৃষি মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব মোহাম্মদ মঈন উদ্দিন আব্দুল্লাহ উপস্থিত ছিলেন।(বাসস) :


এ পাতার অন্যান্য সংবাদ

•কলাপাড়ায় জাতীয় মৎস্য সপ্তাহ পালিত ॥ •কলাপাড়ায় জোয়ারের পানিতে ভাসছে সাত গ্রামের ১০ হাজার মানুষ ॥ •আবাদি জমির সঙ্গে মিশে একাকার ,কলাপাড়ার পর্যটন পল্লী গঙ্গামতি সৈকতে যাওয়ার সংযোগ সড়কটির বেহাল দশা ॥ • কলাপাড়ায় জাতীয় মৎস্য সপ্তাহ উপলক্ষ্যে আলোচনা সভা ও চাষী সমাবেশ অনুষ্ঠিত •কলাপাড়ায় পাট পণ্য প্রদর্শনী ও বিক্রয় কেন্দ্রের উদ্বোধন •বরগুনার পায়রা নদীতে কুমিরের, ভয়ে জেলেদের মাছ শিকার বন্ধ •আমতলীতে পান চাষে পারভীন এখন স্বাবলম্বী
Untitled Document
  • সর্বশেষ সংবাদ
  • সবচেয়ে পঠিত
  • এক্সক্লুসিভ

Top
Untitled Document